ওয়াশিংটন: সিনসিনাটি মাস্টার্সের ওয়াইল্ড কার্ড পেলেন বিশ্বের দুই প্রাক্তন এক নম্বর তারকা ভেনাস উইলিয়ামস ও মারিয়া শারাপোভা৷ ওয়াইল্ড কার্ডের সৌজন্যেই ১২ অগস্ট থেকে শুরু হতে যাওয়া ডব্লুটিএ ইভেন্টের সরাসরিস মূলপর্বে খেলতে দেখা যাবে ভেনাস ও মাশাকে৷

আরও পড়ুন: প্রসূন থেকে প্রসেনজিৎ, মোহনবাগান দিবস যেন চাঁদের হাট

৩৯ বছরের ভেনাস কেরিয়ারে ৭টি গ্র্যান্ড স্ল্যাম সিঙ্গলস জিতেছেন৷ সব মিলিয়ে মোট ৪৯টি ডব্লুটিএ ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন তিনি৷ আরও ৯টি মেজর টুর্নামেন্টে রানার্স হয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে সিনিয়র উইলিয়ামসকে৷ ২০০০ সালে সিডনি অলিম্পিকের সিঙ্গলসে চ্যাম্পিয়ন হওয়া ভেনাস বোন সেরেনা উইলিয়ামসকে সঙ্গে নিয়ে অলিম্পিকের আরও ৩টি ডাবলস খেতাব ঘরে তুলেছেন৷

এই মুহূর্তে বিশ্ব-ব়্যাংকিংয়ের ৫১ নম্বরে থাকা ভেনাস উইলিয়ামস ২৫ বছরের পেশাদার কেরিয়ারে এই নিয়ে মোট ৭ বার সিনসিনাটি মাস্টার্সের কোর্টে নামবেন৷ যদিও এখনও পর্যন্ত এই টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হওয়া হয়নি তাঁর৷ আগের ৬ বারের মধ্যে তাঁর সব থেকে ভালো পারফরম্যান্স বলতে ২০১২ সালের সেমিফাইনালে ওঠা৷ ৫ বারের উইম্বলডন চ্যাম্পিয়ন ভেনাস এবছর এসডব্লু নাইন্টিনে প্রথম রাউন্ডেই ১৫ বছরের মার্কিন কিশোরী কোরি গাফের কাছে পরাজিত হন৷

আরও পড়ুন: যুবির ব্যাটে আবার ঝড়, শেষ বলের থ্রিলারে হার টরন্টোর

অন্যদিকে, যে ছ’জন ডব্লুটিএ তারকা এখনও পর্যন্ত কেরিয়ার স্ল্যাম পূর্ণ করেছেন, তাঁদের মধ্যে অন্যতম একজন হলেন মারিয়া শারাপোভা৷ পাঁচটি গ্র্যান্ড স্ল্যামসহ মোট ৩৬টি ডব্লুটিএ খেতাব রয়েছে ৩২ বছর বয়সি রাশিয়ান তারকার ঝুলিতে৷ এই মুহূর্তে বিশ্বব়্যাংকিংয়ের ৮১ নম্বরে থাকা মারিয়া কাঁধের চোটের জন্য দীর্ঘ চার মাস কোর্টের বাইরে ছিলেন৷ চোট সারিয়ে টেনিস কোর্টে ফিরলেও উইম্বলডনের প্রথম রাউন্ডের তৃতীয় সেট চলাকালীন ম্যাচ ছেড়ে দিতে বাধ্য হন চোটের জায়গায় অস্বস্তি অনুভব করায়৷

২০১১ সালে সিনসিনাটি চ্যাম্পিয়ন হওয়া মাশা ২০১৪ সালে শেষবার অংশ নিয়েছিলেন এই টুর্নামেন্টে৷ সেবার সেমিফাইনালে হেরে ছিটকে যেতে হয়েছিল তাঁকে৷

আরও পড়ুন: প্রত্যাশাপূরণে ব্যর্থ হয়েও কেন অধিনায়ক পদে কোহলি, নির্বাচকদের প্রশ্ন গাভাসকরের

সিনসিনাটির টুর্নামেন্ট ডিরেক্টর আন্দ্রে সিলভা দুই তারকার ওয়াইল্ড কার্ড প্রসঙ্গে জানান, ‘মারিয়া ও ভেনাস ইতিহাসের অন্যতম সেরা দুই টেনিস তারকা৷ দু’জনেই চ্যাম্পিয়ন খেলোয়াড়৷ আমাদের বিশ্বমানের টুর্নামেন্টে ওদের ফিরিয়ে আনতে পেরে আমরা খুশি৷’