স্টাফ রিপোর্টার,কলকতা: ঘামের গন্ধে মাতাল হয় বিষধর কালাচ সাপ৷ সুন্দরবনের এই ত্রাস এখন বাসা বেধেছে হুগলি জেলায়৷ ক্লান্ত শরীরের ত্বক নিঃসৃত ঘামের গন্ধে নেশাতুর কালাচ৷ মানুষের অজান্তেই সেই গন্ধ নিতে হাজির হয় বিছানায়৷ তাই আতঙ্কে সেখানকার বাসিন্দারা৷

স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, হুগলি জেলার পোলবার সরস্বতী নদী সংলগ্ন এলাকায় বিষধর কালাচ দেখা গিয়েছে৷ দিন দিন তাদের সংখ্যা বেড়েই চলেছে৷ সুন্দরবনের ত্রাস এই সাপ কিভাবে হুগলিতে এসেছে,তা নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা৷ আগে এখানে সচরাচর দেখা মিলত না ভয়ঙ্কর প্রজাতির এই সাপের৷ কালাচকে কেউ কেউ ইন্ডিয়াম ক্রেট, কেউ আবার ব্ল্যাক ক্রেট এমনকি ঘামচিতি নামেও ডাকেন।

সুন্দরবনের বিষধর কালাচ ঘামের গন্ধে মাতাল হয়৷ পরিবার বা বন্ধু-বান্ধবদের কাছে ঘামের গন্ধ অসহ্য হলেও ওদের কাছে খুব প্রিয়৷ ক্লান্ত শরীরের ত্বক নিঃসৃত ঘামের গন্ধে নেশাতুর হয় কালাচ৷ যখন মানুষ ক্লান্ত শরীরে বিছানায় ঘুমিয়ে পড়ে,তখনই সে হাজির হয় বিছানায়৷ মানুষের অজান্তেই ঘামের গন্ধ নিতে ঘাপটি মেরে থাকে বিছানায়৷ সাবধান না হলে, শান্ত স্বভাবের এই কালাচের দংশনে নিমেষে অনিবার্য মৃত্যু৷

সর্প বিশারদদের কথায়, শান্ত স্বভাবের হলেও সাপটির বিষ খুবই তীব্র। ঘুমের ঘোরে ওর গায়ে মানুষের হাত-পা পড়লেই দংশন করে পালিয়ে যায়৷ পিঁপড়ের কামড়ের মতো মনে হয়৷ কাউকে কামড়ালে ব্যথা না হওয়ায় প্রথমাবস্থায় কেউ বুঝতেই পারবেন না যে তাঁকে সাপে দংশন করেছে। এমনকি কাটা জায়গা ফুলবেও না। থাকবে না কোনও অনুভূতিও। এই অবস্থায় অনেকের কাছেই সাপের কামড়ের ব্যাপারটি প্রথমে অজানাই থেকে যায়।

কালাচ কামড়ালে লক্ষণ বা উপসর্গ হল— সর্প দংশন হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই ঝিমিয়ে পড়া বা তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে পড়া। চোখের পাতা পড়ে যাওয়া। চোখে ঝাপসা দেখতে শুরু করা। পেটে ব্যথা হওয়া। কথা জড়িয়ে আসা বা গলায় ব্যথা অনুভব করা। মুখ দিয়ে লালা ঝরতে থাকা। যদিও এগুলির কোনওটিই সাপের কামড়ের উপসর্গ নয়। ফলে শনাক্ত করাটাই চিকিৎসকদের কাছে সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। কিছুক্ষণ অতিক্রান্ত হওয়ার পর রোগী বুকের পাঁজরে ব্যথা অনুভব করে। পাঁজর অসাড় হয়ে পড়ে। আর তার পর শ্বাসপ্রশ্বাস নিতে না পারায় মৃত্যু হয় রোগীর।

ছিপছিপে,কালো রং এর উপর সাদা সাদা ডোরাকাটা দাগের ফণাহীন এই সাপটি মানুষের সাহচর্য পছন্দ করে৷ সাধারণত কালাচকে মাটির বাড়ির আনাচে কানাচে, ঝোপঝাড়ে দেখতে পাওয়া যায়৷ এই সাপকে ঘরের মধ্যে বিছানার ওপর বালিশের নীচে থাকতে বেশী পছন্দ করে বলে বিশেষজ্ঞদের মত৷ এছাড়াও মাদুর, চাটাই বা গোটানো বিছানার মধ্যে গুটিসুটি মেরে লুকিয়ে থাকে৷

এই সাপকে কিভাবে এড়াবেন:

১. বাড়ির আনাচে কানাচে ঝোপঝাড় পরিষ্কার রাখতে হবে৷ ২. কার্বলিক অ্যাসিড বাড়ির সর্বত্র ছড়াতে হবে৷ ৩. সর্বত্র সজাগ থাকতে হবে যাতে কোথাও নোংরা আবর্জনা না জমে৷ ৪. বর্ষাকাল থেকে গরমকাল এই দুটি সময় সতর্ক থাকা দরকার।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ