স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: করোনা আবহে দফায় দফায় লকডাউনের জেরে সবজির বাজার আগুন। গোটা রাজ্য সহ বাংলার জেলাগুলিতেও সবজি বাজারের একই অবস্থা।

জলপাইগুড়ির বিভিন্ন বাজারে সবজির দাম রীতিমতো আকাশ ছোঁয়া। প্রতি কেজি কাঁচা লঙ্কা ২০০ টাকা দরে বিকোচ্ছে। এছাড়াও বিভিন্ন সবজির দাম বেশি হওয়ার কারণে সমস্যা‌য় পড়ছে‌ন বাজারে আসা সাধারণ মানুষ।

ক্রেতাদের অভিযোগ, গত কয়েক সপ্তাহের মধ্যে দুই থেকে তিন গুন বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন রকমের সবজি। জলপাইগুড়ি‌র বিভিন্ন বাজারে পটল,বেগুন,ঝিঙ্গা,করলা, টমেটো সহ বিভিন্ন রকমের সবজির দাম হঠাৎ করেই অতিরিক্ত বেড়ে যাওয়ায় চিন্তার ভাজ পড়েছে দিনআনি দিন খাওয়া সাধারণের।

এতটাই দাম বেড়ে গিয়েছে যে আশি থেকে একশো টাকার নিচে কোনও সবজিই মিলছে না।স্কোয়াশের দামও বেড়ে হয়েছে প্রতি কেজি ৫০ টাকা।

সব্জির দাম আচমকা বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন বাজার করতে আসা সাধারণ মানুষ।গত কয়েকদিনে সমস্ত রকম সবজির দামই দুই থেকে তিনগুন বেশি হয়েছে বলে অভিযোগ ক্রেতাদের।

অন‍্যদিকে ব‍্যবসায়ী‌রা জানান,বাজারে এখন সব্জির আমদানি কম রয়েছে।এজন্য দাম কিছুটা বেড়েছে। বর্ষায় জমিতে জল জমে যাওয়ায় অনেক ফসল নষ্ট হয়ে গিয়েছে।তাই বাজারে এখন সবজির আমদানি অনেক কম রয়েছে বলেও জানিয়েছেন অনেকে।

আমদানি কমে যাওয়ায় সব্জির দাম এখন অনেকটাই বেশি। আপাতত মাস দেড়েক সবজির দাম কমার কোনও সম্ভাবনা নেই বলে জানান সবজি ব‍্যবসায়ী‌রা।

বৃহস্পতিবার জলপাইগুড়ি‌র বিভিন্ন বাজারে সবজির দাম ছিল কাঁচালঙ্কা ২০০ টাকা,পটল ৮০-১০০ টাকা,মূলো ১০০ টাকা,স্কোয়াশ ৫০-৬০ টাকা,বেগুন ৮০-১০০ টাকা টম্যাটো ৮০-১০০ টাকা,ঝিঙে ৬০-৮০ টাকা,কাকরোল ৮০-১০০ টাকা কেজি দরে বিকোচ্ছে।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা