নয়াদিল্লি: সংসদ ভবনের ক্যান্টিনের খাবারে ভরতুকি আগেই বাতিল করা হয়েছিল। এবার সংসদের খাবারের মেনুতেও বদল আনা হচ্ছে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে সংসদের ক্যান্টিনে এবার থেকে আর মিলবে না কোনও আমিষ পদ। নিরামিষ খাবারই খেতে হবে সাংসদদের। এমনকী সংসদের ক্যান্টিনের দায়িত্বও আইআরসিটিসি-র বদলে অন্য কোনও বেসরকারি সংস্থাকে এবার দেওয়া হতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

সংসদে খাবার সরবরাহের দায়িত্বে রয়েছে আইআরসিটিসি। কিন্তু বেশ কিছুদিন ধরেই আইআরসিটিসির খাবারের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলছিলেন সাংসদদের একাংশ। ক্রমেই অসন্তোষ বাড়ছিল আইআরসিটিসির বিরুদ্ধে। এবার তাই আইআরসিটিসির বদলে অন্য কোনও সংস্থাকে দায়িত্ব দেওয়ার কথা ভাবছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

সূত্রের খবর, সংসদে খাবার সরবরাহ করার ক্ষেত্রে আপাতত যে দুটি সংস্থা এগিয়ে রয়েছে সেই দুটি সংস্থাই নিরামিষ খাবার বিক্রি করে। আর এতেই বেড়েছে জল্পনা। জানা গিয়েছে ওই দুই সংস্থার মধ্যে কোনও একটি সংস্থা যদি খাবার দেওয়ার বরাত পায় তবে নিরামিষ খাবার খেয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হবে সাংসদদের।

২০১৯ সালের শেষের দিকে সংসদের খাবারে ভরতুকি তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পকেটের কড়ি গুণেই এখন খাবার খেতে হয় সংসদের ক্যান্টিনে। কর্তৃপক্ষ এখন সংসদের খাবার সরবরাহের দায়িত্ব পুরোপুরি বেসরকারি হাতে তুলে দিতে চাইছে। কারও কারও মতে, সংসদে খাবার পরিবেশনের দায়িত্ব বেসরকারি হাতে গেলে খাবারের গুণমাণ বজায় থাকবে। ব্যবসা ধরে রাখতে খাবারের মান নিয়ে সমঝোতা করবেন না ব্যবসায়ীরা।

সত্যিই যদি শেষ পর্যন্ত সংসদ ক্যান্টিন বেসরকারি হাতে যায়, তবে খাবার খেতে আগের চেয়ে বাড়তি টাকাই গুণতে হবে সাংসদ থেকে শুরু করে সংসদ ভবনের অন্য কর্মী ও আধিকারিকদের।