বাস্তুর এই নিয়ম মানলেই নাকি পরিবারে আসবে সুখ-শান্তি-সমৃদ্ধি৷ কিন্তু তার জন্য মানতে হবে বেশ কিছু বিষয়৷ আর সেগুলি দেওয়া নিচে৷ দেখে নিন একঝলকে…

সম্ভব হলে…
১) স্ফটিকের শিবলিঙ্গ পুজো করুন৷ আসল স্ফটিক হলে তার ভালো প্রভাব আপনার ওপর পড়ার কথা৷
২) বাড়ি তৈরি করলে দরজা এবং জানালা সমান সংখ্যক করার চেষ্টা করুন৷ আবার সিঁড়ি করুন বিজোড় সংখ্যার৷

আরও পড়ুন: হনুমানজির জপ করে কালো সূতো পরলেই নাকি ধনসম্পত্তি ফুলে ফেঁপে উঠবে

৩) শৌচালয় এবং রান্নাঘর সামনাসামনি হওয়া ক্ষতিকারক বলে মনে করা হয়৷
৪) বাড়িতে একাধিক গণেশের মূর্তি থাকলে সমস্যা হবে না, কিন্তু মাথায় রাখতে হবে পুজো কিন্তু নির্দিষ্ট একটি গণেশ মূর্তিকেই করতে হবে৷

৫) বাড়িতে গণপতি বাপ্পার মূর্তি, রঙ্গোলি, স্বস্তিক বা ওঁম চিহ্ন অশুভ আত্মার প্রভাব পড়তে পারে না৷
৬) ঘরের ভিতরে বা বাইরে দেব দেবীর আশীর্বাদ মুদ্রার মূর্তি বা ছবি রাখুন৷ মনে রাখবেন, বাড়ির বাইরের দিক করে যেন দেবীর মুখ থাকে৷ শুধুমাত্র গণেশের মুখ বাড়ির ভেতরের দিক করে রাখা যায়৷ কারণ গণেশের পিছনে থাকে দুঃখ-দুর্দশা৷

আরও পড়ুন: এই জিনিসগুলি মেনে চললেই প্রচুর ধনসম্পত্তির মালিক হবেন আপনিও

৭) দক্ষিণ দিকে ঘোড়া রাখা(মূর্তি) শুভ মনে করা হয়৷
৮) ঘরের ড্রয়িংরুমে, ময়ূর, বাঁদর, বাঘ, হরিণ জাতীয় পশুর ছবি বা মূর্তি একজোড়া মুখোমুখি ব়াখুন, যাদের মুখ বাড়ির ভিতরের দিকে রাখা থাকবে৷ একে শুভ মনে করা হয়৷

৯) ধন-সম্পত্তি বাড়াতে ক্যাশ বাক্সতে তিনটি কয়েন বা মুদ্রা অবশ্যই রাখুন৷
১০) বাড়ির বৈঠকখানায় পিরামিড রাখতে পারেন উত্তর-পূর্ব দিক করে৷

তবে এইসব মানা, না মানা নিয়ে তর্ক-বিতর্ক চলতেই থাকে৷ বিশ্বাসেই মিলায় বস্তু এমনও অবশ্য অনেকে মনে করেন থাকেন৷ তাই একটা কথা বলাই যায়, আপনার শান্তি-সমৃদ্ধি অনেকটাই নির্ভরশীল আপনার প্রচেষ্টার ওপর৷