লন্ডন: ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ, রোনাল্ডোর জুভেন্তাসের পর এবার ঘরের মাঠে বিধ্বস্ত টটেনহ্যাম হটস্পার। ইউরোপ সেরার টুর্নামেন্টে আয়াক্সের ফেয়ারিটেল অব্যাহত। লন্ডনে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রথম সেমিফাইনালে টটেনহ্যামকে ১-০ গোলে হারিয়ে মাদ্রিদের পথে এক পা বাড়িয়ে রাখল ডাচ ক্লাবটি। আর মাত্র ৯০ মিনিটের অপেক্ষা। আগামী ৯ মে ঘরের মাঠে ফলাফল নিজেদের দখলে রাখতে পারলে ১৯৯৬-র পর প্রথমবারের জন্য চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের যোগ্যতা অর্জন করবে আয়াক্স।

হ্যারি কেন এবং নির্বাসিত হিউং মিন সনকে ছাড়া এদিন সারা ম্যাচে ইতিবাচক সুযোগ তৈরি করে নিতে ব্যর্থ স্পারস। এরই মধ্যে বিরতির ঠিক আগে নাকে গুরুতর আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়েন টটেনহ্যাম ডিফেন্ডার ভার্তোনঘেন। ফাইনাল থার্ডে গিয়ে খেই হারিয়ে ফেলতে থাকা মৌরিসিও পোচেত্তিনোর দল যদিও এদিন ম্যাচে পিছিয়ে পড়ে ১৫ মিনিটেই।

আরও পড়ুন: রাজীব গান্ধী খেলরত্নের জন্য মনোনীত নীরজ চোপড়া

হাকিম জিয়েচের ঠিকানা লেখা থ্রু পাস বক্সের মধ্যে রিসিভ করে হুগো লরিসকে পরাস্ত করেন ভ্যান ডি বিক। কার্যত ফাঁকায় দাঁড়িয়ে স্কোরলাইন ১-০ করেন ডাচ মিডফিল্ডার। এরপর অ্যাক্সিলেটরে পা রেখেই প্রথমার্ধ দাপটের সঙ্গে ফুটবল খেলে ডাচ ক্লাবটি। দলের হয়ে ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়ার সুযোগও চলে আসে ভ্যান ডি বিকের সামনে। কিন্তু এক্ষেত্রে হুগো লরিস ঢাল হয়ে দাঁড়ান স্পারস দুর্গে।

আরও পড়ুন: বাধ্য হয়ে জার্সির রং-য়ে বদল আনল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড

ভার্তোনঘেনের পরিবর্তে দ্বিতীয়ার্ধে মৌসা সিসোকোর অন্তর্ভুক্তিতে মাঝমাঠে শক্তি বাড়ায় স্পারস। জোড়া গোলের সুযোগ চলে আসে ডেলে আলির সামনে। কিন্তু ডেডলক খোলার মত পর্যাপ্ত ছিল না সেগুলি। অন্যদিকে ব্যবধান বাড়িয়ে নিতে না পারলেও কাজের কাজটি আগেই সেরে নিয়েছিল আয়াক্স। কিন্তু ৭৮ মিনিটে ডেভিড নেরেজের শট লরিসকে বোকা বানিয়ে পোস্টে প্রতিহত হয়ে ফিরে না এলে হোম ম্যাচে অনেক বেশি অ্যাডভান্টেজ নিয়ে নামতে পারত ডাচ ক্লাবটি।

তবে অ্যাওয়ে ম্যাচে এক গোলের অ্যাডভান্টেজও কম কথা নয়। কিন্তু শেষমেষ তা পর্যাপ্ত হিসেবে পর্যবসিত হয় কীনা, আগামী ৯ মে মিলবে তার উত্তর।