দেরাদুন: বাড়ির ভিতর থেকে সাপ উদ্ধার হওয়ার ঘটনা নতুন নয়। অনেক সময়ই নিজেদের আশ্রয় থেকে বেরিয়ে এরা বাড়ির ভিতর ঢুকে পড়ে। তবে এমন একটি সাপ পাওয়া যাবে, তা ভাবেননি বন দফতরের আধিকারিকেরাও। সাপ দেখে রীতিমত চমকে গেলেন তাঁরা। বিরল নয়, একে বিরলতম বলা যেতে পারে।

শুক্রবার উত্তরাখণ্ডের নৈনিতাল জেলায় একটি বাড়িতে এই সাপটি দেখা গিয়েছে। বন দফতরের আধিকারিকেরা গিয়ে সেটিকে উদ্ধার করেন। তাঁরা জানিয়েছেন এটি বিরলতম রেড কোরাল কুকরি সাপ। নৈনিতালের বিন্দুখাট্টা এলাকার একটি বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় একে।

বন দফতরের এই অফিসারেরা জানিয়েছে ১৯৩৬-এ শেষবার উত্তরপ্রদেশে এরকম একটি সাপ দেখা গিয়েছিল। তারপরই এটির বৈজ্ঞানিক নাম দেওয়া হয়। Oligodon kheriensis হল এর বৈজ্ঞানিক নাম। চলতি নামে কুকরি বলে ডাকা হয় একে। কারণ এদের দাঁত নাকি অনেকটা গোর্খাদের কুকরির মত বাঁকানো।

ডিভিশনাল ফরেস্ট অফিসার নীতিশ মনি ত্রিপাঠী বলেন, নৈনিতালের বাসিন্দা কবিন্দ্র কোরাঙ্গা বন দফতরে ফোন করে একটি সাপ উদ্ধার কররা কথা জানান। গৌলা ফরেস্ট রেঞ্জের টিমকে ডেকে পাঠানো হয়েছিল। সেখানে গিয়ে দেখা যায় সাপটিকে একটি প্লাস্টিক প্যাকেটে রাখা হয়েছে।

এরপর তাঁকে বের করতেই চমকে যান অফিসারেরা। তাঁরা জানান এটি বিরলতম রেড কোরা কুকরি। সেটিকে উদ্ধার করে জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

বন্য প্রাণী বিশেষজ্ঞ বিপুল মৌর্য্য জানিয়েছেন এটি একটি বিরল প্রজাতির সাপ। এখনও পর্যন্ত মাত্র দু’বার দেখা গিয়েছে। উত্তরাখণ্ডে ২০১৫ তে সুরাই ফরেস্ট রেঞ্জে তেরাই ইস্ট ডিভশনে এটি দেখা গিয়েছিল। এর আগে ২০১৪ তে এটিকে দেখা যায়, তবে মৃত অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল সেই সাপটিকে।

১৯৭২-এর বণ্যপ্রাণী সংরক্ষণের শিডিউল ৪-এর তালিকায় রয়েছে এটি। এটি বিষাক্ত নয়। মূলত পতঙ্গ, লার্ভা খেয়েই বেঁচে থাকে এটি। সাধারণর এটি লাল বা উজ্জ্বল কমলা রঙের হয়।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা