লখনউঃ  রাজ্য সরকারি কর্মীদের জন্যে সুখবর। দিওয়ালির আগেই মিলতে পারে বোনাস। চলতি মাসের ২৮ তারিখ দিওয়ালি। আর তার আগেই রাজ্য সরকারি কর্মীদের বোনাস ঘোষণা করতে পারে রাজ্য সরকার। ইতিমধ্যে বোনাস দেওয়ার ক্ষেত্রে যে ফাইল সই হয়ে আসার প্রয়োজন রয়েছে তা ইতিমধ্যে অর্থদফতরের কাছে চলে এসেছে জাতীয় এক সংবাদমাধ্যমের প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে। মাস মাইনের আগেই হয়তো রাজ্য সরকারি কর্মীদের অ্যাকাউন্টে পড়ে যেতে পারে এই বোনাসের টাকা।

প্রকাশিত খবর মোতাবেক প্রায় ১৭ লক্ষ্যেরও বেশি কর্মচারী এবার বোনাস পাবেন। আর তা অবশ্যই পাওয়া যাবে দিওয়ালির আগেই, সূত্রে এমনটাই জানা যাচ্ছে। হিসাব অনুযায়ী, রাজ্য সরকারি কর্মীরা এক একজন প্রায় ৭০০০ টাকা পর্যন্ত বোনাস পেতে পারেন। প্রত্যেক বছরের মতোই এবারও ৭৫ শতাংশ পিএফ অ্যাকাউন্টে এবং ২৫ শতাংশ নগদ হাতে দেওয়া হবে। এর জন্যে রাজ্য সরকারের প্রায় ৯৬৮ কোটি টাকা রাজ্যের কোষাগারে বাড়তি খরচ হবে বলেই জানাচ্ছে জাতীয় এক সংবাদমাধ্যম।

গত বছর রাজ্য সরকার ৬৯০৮ টাকারও বেশি বোনাসের জন্যে খরচ করেছিল। এই বছরও সেই পরিমাণ টাকা বোনাসের জন্যে দেওয়ার কথা রয়েছে। উত্তরপ্রদেশ সরকারের এই সিদ্ধান্তে খুশি রাজ্য সরকারি কর্মীরা। উৎসবের আগেই বিশাল অংকের এই টাকা অ্যাকাউন্টে পড়ে যাওয়ার আশ্বাসে কিছুটা হলেও খুশি তাঁরা।

অন্যদিকে, ইপিএফও (Employees Provident Fund Organisation) কর্মীদের জন্যে দেওয়ালির আগেই সুখবর। সংস্থা তাঁদের কর্মীদের জন্যে বোনাস ঘোষণা করেছে। এজন্যে গ্রুপ সি এবং গ্রুপ-বি ৬০ দিনের বোনাস পাবে। ইতিমধ্যে শ্রমমন্ত্রকের তরফ থেকে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। যেখানে এই ৬০দিনের বোনাসের কথা বলা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের জন্যে উৎপাদন ভিত্তিক এই ৬০ দিনের বোনাসের কথা বলা হয়েছে। দেওয়ালির আগেই সরকারের এই ঘোষণায় খুশি লক্ষাধিক সরকারি কর্মী।

শ্রমমন্ত্রকের বিজ্ঞপ্তি অনুসারে গ্রুপ বি এবং গ্রুপ সি কর্মীরা পাবে 30.4 দিনের বোনাস। যা প্রায় ৭ হাজার টাকার কাছাকাছি। তবে এই হিসেবটা কর্মীর জন্যে বিভিন্ন রকমের। স্টেট এমপ্লয়িস জয়েন্ট কাউন্সিলের আহ্বায়ক আর কে ভর্মা জানান, এই উৎপাদন ভিত্তিক বোনাসের হিসাব আর অন্যান্য সরকারি কর্মীদের মতোই ব্যতিক্রম শুধু দিনের হিসেবে। তিনি জানান, এক্ষেত্রে যে ফর্মুলা ব্যবহার করা হয় তা হল ( গড় আয় x যতগুলি দিন/ 30.4)।