স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: রাতের শহরে একদল দুষ্কৃতীদের খপ্পড়ে পড়লেন শহরের প্রাক্তন মিস ইন্ডিয়া ইউনিভার্স৷ নিজের ফেসবুক পোস্টে দীর্ঘ বিবৃতি দিয়ে সেই ভয়াবহ অভিজ্ঞতার বর্ণনা করেছেন উষসী সেনগুপ্ত। সেই সঙ্গে শহরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি । পুলিশ জানিয়েছে, এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত সাত জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷

উষসী লিখেছেন, সোমবার রাত ১২টা নাগাদ একটি ক্যাবে চেপে নিজের বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন তাঁরই এক সহকর্মী। এক্সাইড মোড় থেকে এলগিনের দিকে গাড়ি বাঁক নিতেই তাঁদের গাড়িকে অনুসরণ করা শুরু করে কয়েক জন বাইক আরোহী। তারপর আচমকাই তাঁদের গাড়ির উপর চড়াও হয় জনা কয়েক তারা। প্রথমে চালককে নামিয়ে টেনে হিঁচড়ে নামিয়ে মারধর করে তারা। বাধা দিলে কটূক্তি করে উষসীকেও।

আরও পড়ুন: শপিং মলে পেট্রল-ডিজেল বিক্রি করতে পারে মোদী সরকার

উষসীর কথায়, ‘‘আমাদের চালক গাড়ির গতি বাড়িয়ে দেয়। শুরুতে জনা চার-পাঁচ যুবক থাকলেও হঠাৎই লক্ষ্য করি আরও কয়েকজন চলে আসে তাদের সঙ্গে। প্রায় ১৫ জনের মতো ছিল।’’ উষসী জানিয়েছেন, গোটা ঘটনাটাই তিনি ভিডিও রেকর্ড করেন।

উষসীর দাবি, ঘটনাস্থলের কাছেই ডিউটিতে ছিলেন দুই পুলিশ কর্তা। সাহায্য চাইলে তাঁরা সাফ জানিয়ে দেন, “আমাদের কিছু করার নেই। এই বিষয়টা আমাদের এক্তিয়ারের মধ্যে পড়ে না।”তিনি বলেন, ওটা ভবানীপুর থানার ঘটনা। আমি হাতজোড় করে অনুরোধ করি, আপনি চলুন, না হলে ড্রাইভারকে মেরে ফেলবে। উনি গিয়ে ওদের বলেন, ঝামেলা করছ কেন? ওরা অফিসারকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। সব কিছু মিটে যাওয়ার পর ভবানীপুর থানা থেকে দু’জন অফিসার গিয়েছিলেন। আমি ভেবেছিলাম আজ সকালে পুলিশে জানাব।’’

আরও পড়ুন: পার্লামেন্টে প্রকাশ্যে জয় শ্রীরাম বনাম জয় বাংলা যুদ্ধ

গোটা ঘটনাতেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন উষসী। তাঁর দাবি, মঙ্গলবার সকালে চারু মার্কেট থানাতে অভিযোগ লেখাতে গিয়েও তাঁকে হেনস্থা হতে হয়।এই কেস ভবানীপুর থানার এক্তিয়ারে পড়ে এই অজুহাতে চারু মার্কেট থানার পুলিশ অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে৷

এদিকে পুলিশ জানিয়েছে, এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত সাত জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ ধৃতদের বয়স ২০-২৫ বছরের মধ্যে। পুলিশের অনুমান, যুবকরা মদ্যপ অবস্থায় ছিল। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।