ওয়াশিংটন: পাকিস্তানকে সাবধান হতে বলল আমেরিকা। সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থাও নিতে বলা হয়েছে। ভারতে আর কোনও হামলা হলে, তার ফল খারাপহতে পারে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছে আমেরিকা।

বুধবার হোয়াইট হাউসে এক আধিকারিক সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, ‘আমরা দেখতে চাই যে পাকিস্তান জঙ্গিদের বিরুদ্ধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিচ্ছে। বিশেষত জইশ-ই-মহম্মদ, লস্কর-ই-তইবার বিরুদ্ধে যেন ব্যবস্থা নেওয়া হয়। যাতে আর কোনও অশান্তি না হয়।’

তিনি জানিয়েছেন, ভারতে যদি আর কোনও হামলা হয় আর পাকিস্তান যদি এইসব জঙ্গিদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা না নেয়, তাহলে তার ফল খুব খারাপ হতে পারে। এর ফলে ওই এলাকায় নতুন করে অশান্তি তৈরি হয়। যা ভারত-পাক দুই দেশের জন্যই ক্ষতিকর।

পুলওয়ামায় ১৪ ফেব্রিয়াঋইর আত্মঘাতী হামলায় পাক জঙ্গি যোগ স্পষ্ট। হামলার দায় স্বীকার করে নিয়েছে পাক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ। এরপরও জইশের যোগ থাকার কথা স্বীকার করেনি পাকিস্তান। এই প্রসঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে মাইক পম্পিও বলেছেন, ‘আমরা দেখেছিল ভারতে কি হয়েছিল। পাকিস্তানের উচিৎ সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া। জঙ্গিদের আশ্রয় দেওয়া বন্ধ করতে হবে।’

তিনি আরও জানিয়েছেন যে ডোনাল্ড ট্রাম্প পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যে ব্যবস্থা নিয়েছেন, তা আগে আর কেউ নেয়নি। তবে তিনি বলেন, আমরা চাই পাকিস্তান আরও বেশি উদ্যোগ নিক।’

এর আগে, মার্কিন বিদেশমন্ত্রকের উপমুখপাত্র রবার্ট পালাডিনো বলেন, পাকিস্তানের কাছে এই অনুরোধ করা হবে যাতে সে বারবার এবং স্থায়ীভাবে সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করে এবং ভবিষ্যতে যে কোনও হামলা হওয়াকে রুখে দেওয়া যেতে পারে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।