ওয়াশিংটন: স্বাস্থ্যের প্রয়োজনে মারিজুয়ানা গাছ লাগাতে আপত্তি নেই আমেরিকার৷ মারিজুয়ানার অন্যতম উপাদান ক্যানাবিস চাষকে আইনসিদ্ধ করল মার্কিন স্বাস্থ্য দফতর৷ জিডব্লু ফারমাসিওটিকাল সংস্থাকে ক্যানাবিস চাষের সবুজ সংকেত দিল স্বাস্থ্য দফতর৷

আমেরিকার বেশিরভাগ শিশু ড্রেভট সিন্ড্রম ও লেনক্স গ্যাসটট সিন্ড্রমে ভোগে৷ শুধু শিশুরা নয়, ২ বছরের শিশু থেকে বৃদ্ধদের মধ্যেও এই সিনড্রম দেখা যায়৷ এটি একটিু ব্যতিক্রমী রোগ৷ সিনড্রম সারার একমাত্র পথ এপিডিওলেক্স ওষুধ৷ যা তৈরি হয় ক্যানাবিস দিয়ে৷ মারিজুয়ানার এই উপাদানটি দিয়েই তৈরি হয় এপিডিওলেক্স৷ GW ফার্মার নিজস্ব বাগিচায় তৈরি হয় ক্যানাবিস৷ বিশেষ কাঁচের ঘরে ক্যানাবিসের চাষ হয়৷ ব্রিটেনে GW ফার্মার শাখায় চাষ হয় ক্যানাবিসের৷

হাইপার টেনশন, মানসিক অবসাদ দূর করতেও ক্যানাবিসের তৈরি ওষুধ দারুণ কাজ দেয়৷ অবশ্য ক্যানাবিসের কিছু বিপরীত প্রতিক্রিয়াও রয়েছে৷ সেই সাবধান বার্তা দিয়েই ক্যানাবিস উৎপাদনে ছাড়পত্র দিয়েছে মার্কিন সরকার৷ মারিজুয়ানাকে আইনস্বীকৃত করতে ড্রাগ এনফোর্সমেন্ট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন কয়েকটি পর্যায়ে মারিজুয়ানাকে ভাগ করেছে৷

ড্রাগ এনফোর্সমেন্ট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন মারিজুয়ানা নিয়ে ৫ তথ্য দিচ্ছে-

১. মারিজুয়ানা বা হেরোইন -মারণ ড্রাগ৷ যার চিকিৎসা সংক্রান্ত কোনও গুনই নেই৷
২.এপিডিওলেক্স ওষুধটি মারিজুয়ানার উপাদান দিয়ে তৈরি হোলেও এর চিকিৎসা সংক্রান্ত গুন বহাল৷
৩.এপিডিওলেক্স ওষুধটি দাম এখনও ঠিক করেনি স্বাস্থ্য দফতর৷ ৯০ দিনের মধ্যে ওষুধের প্যাকেটিং সহ ঠিক করা হবে দাম৷
৪. ১২ মাসের জন্য ওষুধটিকে আনা হবে
৫.ইতিমধ্যেই কলোম্বিয়া মেডিক্যাল ওষুধটির ছাড়পত্র দিয়েছে৷

অনলাইনে এপিডিওলেক্স ওষুধটি ক্রেতারা কিনতে পারবেন৷ মানসিক অবসাদ, হাইপার টেনশন, ব্রেন ডিসঅর্ডারের মত বিভিন্ন সমস্যায় এই ওষুধটি কাজে লাগবে বলে জানাচ্ছে স্বাস্থ্য দফতর৷ নিজের ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করে এপিডিওলেক্স কিনতে পারেন রোগীরা৷

মূলত, মারিজুয়ানার ড্রাগ আসক্তিকে দূরে সরিয়ে আমেরিকার চিকিৎসায় বিপ্লব এনেছে মার্কিন স্বাস্থ্য দফতর৷ মারিজুয়ানার ভালো দিকগুলি অনেকবারই পর্যালোচনায় এসেছে, এবার আন্তর্জাতিক ওষুধের বাজারে মারিজুয়ানা প্রভাব ফেলবে বলে মনে করা হচ্ছে।