ইসলামাবাদ: করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এবার আমেরিকাকে পাশে পেল পাকিস্তান। আন্তর্জাতিক অর্থ ভান্ডার বা ইন্টারন্যশনাল মনিটারি ফান্ড-এর পর পাকিস্তানকে করোনার বিরুদ্ধে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেশ। পাকিস্তানকে ৮.৪ মিলিয়ন ডলার দিচ্ছে আমেরিকা। পাকিস্তানে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পল জোনস শুক্রবার এই ঘোষণা করেছেন।

একটি ভিডিও মেসেজে জোনস বলেন, পাকিস্তানে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া রোধ করতে এবং ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের পাশে দাঁড়াতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৮ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি দিয়ে পাকিস্তান সরকারকে সহায়তা করছে। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন, এই সমস্ত অবদানকে পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষের জন্য সবচেয়ে জরুরি হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং আমেরিকান জনগণ তাদের পুরোপুরি অর্থ প্রদান করেছে।

পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম ডন জানিয়েছে, মোট অর্থের প্রায় তিন মিলিয়ন মার্কিন ডলার পাকিস্তানের করোনভাইরাস হটস্পট এলাকায় তিনটি নতুন মোবাইল ল্যাব সরবরাহের জন্য ব্যবহার করা হবে। এরফলে এই ভাইরাস পরীক্ষা ও নজরদারির ক্ষমতা বাড়বে।

এই টাকার একটা অংশ খরচ করা হবে, স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যে। তাঁরা বাড়ি গিয়ে গিয়ে মানুষকে বোঝাবে। এরফলে হাসপাতালের উপর করোনার বোঝা অনেকটা কমে যাবে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতোই করোনার প্রকোপ থেকে পাকিস্তান যাতে ঘুরে দাঁড়াতে পারে সে জন্য ইসলামাবাদকে প্রায় ১.৪ মিলিয়ান ডলার দেওয়ার অনুমোদন দিয়েছে আন্তর্জাতিক অর্থ ভান্ডার বা ইন্টারন্যশনাল মনিটারি ফান্ড (আইএমএফ)।

উল্লেখ্য, বর্তমানে পাকিস্তানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৭৪৭৬। মৃতের সংখ্যা ছুঁয়েছে ১৪৩। অবস্থা যাতে আরও খারাপ না হয়, সেদিকে নজর রাখছে ইসলামাবাদ।

পরিসংখ্যান জনানাচ্ছে, পাকিস্তানে করোনা সংক্রমণের শীর্ষে রয়েছে পঞ্জাব প্রদেশ। এরপরেই সিন্ধ প্রদেশ রয়েছে আক্রান্তের তালিকায়। সব মিলিয়ে স্বস্তিতে নেই পাকিস্তান।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।