ওয়াশিংটন: সন্ত্রাসবাদীদের মিটিংয়র মাঝেই বিমান হামলা। আর সেই হামলাতেই খতম সাত আল-কায়েদা জঙ্গি। এমনটাই দাবি করছে আমেরিকা। সিরিয়ায় এয়ারস্ট্রাইকে মারা গিয়েছে আল-কায়েদার ৭ শীর্ষ নেতা।

সেন্ট্রাল কমান্ডের মুখপাত্র মেজর বেথ রিওর্ডান বলেন, ইদলিবে ওই এবারস্ট্রাইক করা হয়েছে। ২২ অক্টোবরের এয়ারস্ট্রাইকে ওই সাত জঙ্গি নেতা খতম হয়েছে বলে দাবি করলেও, তাদের নাম এখনও স্পষ্ট ভাবে জানায়নি ওয়াশিংটন।

আমেরিকার দাবি, এই সাত আল-কায়েদার নেতার মৃত্যু খুই তাৎপর্যপূর্ণ। এর ফলে হামলার ঘটনা কমবে বলেই মনে করা হচ্ছে। এভাবেই আল-কায়েদা সহ অন্যান্য জঙ্গি সংগঠনগুলিকে টার্গেট করা হবে বলেও জানিয়ে দিয়েছে আমেরিকা।

ওই হামলায় ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি সিরিয়ার।

জানা যাচ্ছে, সিরিয়ার সালকিন এলাকায় জাকারা নামে একটি গ্রামে নৈশভোজের সঙ্গে সঙ্গে সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের মিটিং চলছোল। আর সেই বৈঠক লক্ষ্য করেই হামলা চালানো হয়। মৃতদের মত্যে সিরিআর বাইরের ৫ জঙ্গি রয়েছে বলেও জানা গিয়েছে।

রাশিয়ার এই বিমানহানায় অন্ততপক্ষে ৫৬ জন বিদ্রোহী মারা গেছেন। শতাধিক আহত বলে জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের সিরিয়ান অবসারভেটারি ফর হিউম্যান রাইটস। রাশিয়ার যুদ্ধবিমানগুলি বিদ্রোহীদের সামরিক প্রশিক্ষণ শিবিরে বোমা ফেলে। এই প্রশিক্ষণ শিবির ইদলিব প্রদেশে এবং তুরস্কের সীমান্তের কাছে। ফয়লাক আল-শাম গোষ্ঠী এই প্রশিক্ষণ শিবির চালাতো।

ইদলিব এখনো বিদ্রোহীদের দখলে। তাদের সাহায্য ও সমর্থন করে তুরস্ক। রাশিয়া আবার সিরিয়ার স্বীকৃত সরকারের পক্ষে। গত মার্চে সিরিয়ার সরকারের সঙ্গে তুরস্কের একটা চুক্তিও হয়েছিল।সিরিয়ান অবসারভেটারি অফ হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, দিন কয়েক আগেই অ্যামেরিকার ড্রোন হানায় ১৭ জন মারা গেছে।

ওয়াশিংটনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল পলিসি সিআইপি এক প্রতিবেদনে বিভিন্ন দেশের অস্ত্র বিক্রির পরিসংখ্যান তুলে ধরেছে৷ দেখা গেছে, মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে এই পাঁচ বছরে ব্যাপক পরিমাণ অস্ত্র যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্স, জার্মানিসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে বিক্রি করা হয়েছে৷

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।