মুম্বই : গত চব্বিশ ঘন্টায় বলিউডের দুই অভিনেতা করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর এসেছে। অর্জুন রামপাল এবং সপরিবারে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন নীল নীতিন মুকেশ। মহারাষ্ট্রে কোভিড পরিস্থিতি লাগাম ছাড়া। সারা ভারত জুড়েই, হাসপাতালের শয্যা সংখ্যা থেকে শুরু করে অক্সিজেন সিলিন্ডারের অভাব দেখা পড়েছে। গুজরাট এবং উত্তর প্রদেশের ভয়াবহ বেশ কিছু চিত্র সামনে আসার পরে সাধারণ মানুষ ভীত এবং সন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে।

বেশ কিছু রাজ্যে লকডাউন ঘোষণা করলেও রাজনৈতিক এবং ধর্মীয় জমায়েত থামানো যাচ্ছে না। কুম্ভ মেলায় সাধু সন্ন্যাসীদের ভিড়ে, কোভিড প্রোটোকলের কোন নিয়ম না মানায় সেখান থেকেই আক্রান্ত হয়েছেন বহু মানুষ। তার সাথে পলিটিক্যাল মিছিল তো আছেই। সবকিছুতে কিছুটা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন অভিনেত্রী উর্মিলা মাতন্ডকর।

সম্প্রতি একটি বিনোদন চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে, তিনি হাত জোড় করে দর্শকদের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে রাজনৈতিক এবং ধর্মীয় জমায়েতকে উপেক্ষা করে নিজেদের জীবন বাঁচাতে অন্যকে রক্ষা করতে থাকে অন্যকে যেটুকু সাহায্য করা যায় সেটুকু করতে। বিনা কারণে বাড়ির বাইরে না বেরোতে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে। তার কারণ হিসেবে তিনি এও বলেছেন করোনা ভাইরাস এর সেকেন্ড ওয়েভে, এই ভাইরাস আরো বেশি সংক্রমণশীল হয়ে এসেছে। এই পর্যায়ের ভাইরাস বায়ু থেকেও সংক্রমণ ঘটায়।ফলতো আমাদের আরো বেশি সতর্ক থাকতে হবে।

অভিনেতা নীল নিতেন মুকেশ পর্যন্ত বলেছেন, যদিও তিনি এবং তাঁর সমগ্র পরিবারের সমস্ত ধরনের সর্তকতা বিধি মানছিলো, তার পরেও তাঁরা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

এ পর্যন্ত বলিউডে সেকেন্ড ফেসে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, সঞ্জয় লীলা বানসালি, রণবীর কাপুর,আলিয়া ভাট, অক্ষয় কুমার,সতীশ কৌশিক, ভূমি পেডনেকার, কার্তিক আরিয়ান, ক্যাটরিনা কাইফ।

করোনার ভ্রুকুটিকে উপেক্ষা করে, বছর যেন ভাল কাটে এবং আগামী দিনগুলো যেন সুস্থ স্বাভাবিক হয়ে ওঠে তার জন্য যাবতীয় ধরনের সতর্কতা মানতেই হবে। নতুবা সামনের দিনগুলো কোন ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির দিকে আমাদের ঠেলে দিচ্ছে তা হয়তো আমরা এখনো বুঝতে পারছিনা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.