নয়াদিল্লি: কানাডা সফরে এক অভাবনীয় সাফল্য পেয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ কানার প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন হার্পার মোদীর সঙ্গে একটি নয়া চুক্তিতে স্বাক্ষর করলেন৷ এই চুক্তি অনুযায়ী, আগামী পাঁচ বছর ভারতকে  ইউরেনিয়াম সরবরাহ করবে  কানাডা৷ ওই দেশের একটি কোম্পানি কামেকো কর্পের সঙ্গে বুধবার এই চুক্তি স্বাক্ষর করেছে ভারত৷ এই সংস্থাই ভারতে ইউরেনিয়ামের যোগান দেবে৷

প্রধানমন্ত্রী মোদী এই বিষয়ে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, কানাডার সঙ্গে নয়া আর্থিক সহযোগিতার বিষয়ে জোর দেওয়া হবে৷ তিনি জানান, ভারতকে ম্যানুফ্যাকচারিং হাব তৈরি করা হবে৷ তিনি আরও জানান, ‘আমরা ক্লিন এনার্জির স্বপ্নকে সত্যি করতে চাই’৷ দুই দেশের মজবুত সম্পর্কের কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, ভারত দ্রুততম ক্রমবর্ধমান অর্থনীতির দেশ৷ কানাডা ভারতকে সঠিক দিশা দেখাতে পারে৷

উল্লেখ্য, কানাডার রাজধানী ওটাবায় প্রধামন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে রাজকীয় ভাবে স্বাগত জানান হয়৷ তাঁকে গান স্যালুট দেওয়া হয়৷ কানাডার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতে এই বিষয়ে আলোচনা হয় বলে জানা গিয়েছে৷

ভারত ও কানাডা প্রায় একদশক পর ফের অসামরকি পরমাণু জ্বালানি খাতে বাণিজ্যিক সহযোগিতা শুরু করতে চলেছে৷ কানাডা সফরে গিয়ে একথা জানান নরেন্দ্র মোদী৷ তিনি জানান, কানাডা সফরের ফলে দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের আরও দৃঢ় হয়েছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.