লখনউ : শনিবারই ২৪ বছরের ব্যবধান কাটিয়ে এক মঞ্চে দেখা দিয়েছিলেন নেতাজী ও বহেনজী৷ একযোগে লড়ার বার্তা দিয়েছিলেন৷ সেই সুর ধরেই রবিবার নরেন্দ্র মোদীকে একহাত নিলেন বসপা সুপ্রিমো মায়াবতী৷

তিনি এদিন বলেন মোদী বড় গলায় বলে বেড়ান উত্তরপ্রদেশের ২২ কোটি জনতা ভোট দিয়ে তাঁকে প্রধানমন্ত্রী করেছে৷ কিন্তু তাঁর একথা মাথায় রাখা উচিত যে জনতা তাঁকে ভোট দিয়ে প্রধানমন্ত্রী করেছে, সেই জনতাই তাঁকে ক্ষমতাচ্যুত করতে পারে৷ এই লোকসভা ভোটেই সেই ঘটনা ঘটতে চলেছে বলে দাবি করেন তিনি৷

মায়াবতীর কটাক্ষ মানুষ এবার জানতে চাইছেন পাঁচ বছর ধরে তাঁদের বিশ্বাসের সঙ্গে ছেলেখেলা কেন করা হল? এই প্রশ্নের উত্তর না পেলে নিজের পদ থেকে মোদীকে সরতে হবে বলেও সমালোচনা করেন তিনি৷

আরও পড়ুন : ভারতীয় সংস্কৃতি বোঝেন না সোনিয়া, তোপ দলত্যাগী কংগ্রেস নেতার

রাজনৈতিক মহলের মতে, সপা-বসপার প্রধান ভোট ব্যাংক পিছিয়ে পড়া জনজাতি৷ কংগ্রেসের বিরোধিতা করে যা অটুট রাখতে চাইলেন মায়াবতী৷ অন্যদিকে, মোদী সরকারের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে বোঝানোর চেষ্টা করলেন উত্তরপ্রদেশে গেরুয়া শিবিরের বিকল্প মায়া-অখিলেশ জোট৷

মোদী বিরোধিতায় সরব বিরোধী রাজনৈতিক শিবির৷ দিল্লির মসনদে পরিবর্তনের স্লোগান তাদের মুখে৷ সেই পরিবর্তনের সাপেক্ষেই ২৪ বছর পর মায়া-মুলায়ম পাশাপাশি৷ উত্তরপ্রদেশের রাজনীতিতে কী তবে বদলের ইঙ্গিত? উত্তর লুকিয়ে সময়ের গর্ভেই৷

তবে জল্পনা উসকে এদিন মায়াবতী বলেন আম জনতার কথা শোনার সময় নেই বিজেপির৷ মানুষের কথা ভাবেন না মোদী৷ ফলে প্রধানমন্ত্রী পদে থাকার কোনও অধিকার নেই তাঁর৷ আর সরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিতে শুরু করা উচিত মোদীর বলে মত মায়াবতীর৷

আরও পড়ুন : ইতালিয়ান বা ভারতীয়, গান্ধী পরিবারের কেউই মোদীকে হারাতে পারবেনা : স্মৃতি

শনিবার ২৪ বছর পর ফের একসঙ্গে দেখা যায় মায়া মুলায়মকে৷ জোট বার্তা দিতে ২৫ এপ্রিল কনৌজে যৌথ প্রচার করার কথা অখিলেশ ও মায়ার৷ কনৌজ থেকে এবারও সমাজবাদী পার্টির প্রার্থী দলের প্রধান অখিলেশ সিং যাদবের স্ত্রী ডিম্পল যাদব৷

ইতিহাস বলছে, ১৯৯৫-এর ২ জুন৷ গেস্ট হাউস কাণ্ডের পর মুখ দেখা-দেখি বন্ধ ছিল মায়াবতী ও মুলায়ম সিং যাদবের৷ লখনউয়ের এক গেস্ট হাউসে সপার সঙ্গ ত্যাগ করে মায়াবতী বিজেপির সঙ্গে জোট গড়েন৷ পরদিন তাদের উত্তরপ্রদেশে সরকার গঠনের কথা ছিল৷

আরও পড়ুন : দিল্লি পুলিশ কিচ্ছু করতে পারবে না, গোল্লায় গোল্লা পাবে বিজেপি: মমতা

দেশের সবচেয়ে শক্তিশালী রাজ্যের ক্ষমতায় তখন মুলায়ম সিং যাদব৷ রাজ্যপাট নিশ্চিৎ হাতছাড়া হতে দেখে ক্ষোভে ফেটে পড়েন নেতাজী৷ গেস্ট হাউস ঘিরে ফেলে তাঁর বাহিনী৷ আতান্তরে পড়েন মায়াবতী৷ কোন মতে বিজেপি বিধায়ক দত্ত দ্বিবেদীর মাধ্যমে বাইরে বেরিয়ে আসতে পারেন তিনি৷

গেরুয়া দলের সমর্থনে ৩ জুন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হন মায়াবতী৷ ক্ষমতায় এসেই শত্রু মুলায়মের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করেন তিনি৷ এই ঘটনাই সে রাজ্যের ইতিহাসে বিখ্যাত গেস্ট হাউস কাণ্ড বলে পরিচিত৷