শেরশাহ এবং শাহজাহান

লখনউ: মুসলিম শাসকদের থেকেই সবথেকে বেশি প্রাপ্তি ঘটেছে ভারতের। এমনই দাবি করলেন যোগী আদিত্যনাথের মন্ত্রীসভার সদস্য। অস্বাভাবিক লাগলেও বিষয়টি সত্যি বলেই দাবি করেছেন যোগীর মন্ত্রী। আরও বড় বিষয় হচ্ছে আলোচিত ব্যক্তি একজন অমুসলিম ব্যক্তি।

যোগী আদিত্যনাথ ভারতের হিন্দুত্ববাদের একটি অন্যতম প্রধান মুখ। অযোধ্যায় রাম মন্দির আন্দোলনেও তাঁর নাম রয়েছে তালিকার শুরুর দিকেই। মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরে মুঘল এবং মুসলিম জামানার অনেক কিছুতেই বদল আনতে শুরু করেছেন। যার গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হচ্ছে বিভিন্ন জায়গার নাম বদল।

এই নিয়েই মুখ্যমন্ত্রী যোগীর উপরে চটে গিয়েছেন তাঁরই মন্ত্রী। বেফাঁস হলেও করে ফেলেছেন এক চাঞ্চল্যকর স্বীকারোক্তি। আলোচিত ব্যক্তি হলেন উত্তর প্রদেশের অনগ্রসর শ্রেণী উন্নয়ন এবং বিকলাঙ্গ মানুষদের উন্নয়ন মন্ত্রী ওম প্রকাশ রাজবর।

ওম প্রকাশ রাজবর

২০১৭ সালের মার্চ মাসে উত্তর প্রদেশে বিজেপির শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে। যার পরিচালনায় রয়েছেন যোগী আদিত্যনাথ। জোট শরিক সুহেলদেব ভারতীয় সমাজ পার্টির হাতে দেওয়া হয়েছিল অনগ্রসর শ্রেণী উন্নয়ন এবং বিকলাঙ্গ মানুষদের উন্নয়ন মন্ত্রকের দায়িত্ব। গত এক সপ্তাহ ধরেই বিজেপি নেতাদের সঙ্গে সম্পর্কে ফাটল ধরেছে রাজবরের। বিজেপির বিরুদ্ধে উন্নয়ন ভুলে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করার অভিযোগ করেছেন তিনি।

সম্প্রতি ফৈজাবাদ জেলার নাম বদল করে অযোধ্যা করার কথা ঘোষণা করেছেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। একই সঙ্গে নামের সঙ্গে মুঘল এবং মুসলিম জামানার সকল কীর্তিই বদল করার হুমকি দিতে শুরু করেছেন বিজেপি নেতারা।

এই বিষয়টি নিয়েই যোগী আদিত্যনাথ এবং ভারতীয় জনতা পার্টিকে আক্রমণ করেছেন ওম মন্ত্রী রাজবর। তিনি বলেছেন, “মুসলিমরা আমাদের দেশে যা দিয়েছে তা অন্য কেউ দেয়নি।” মুঘল জামানার স্মৃতি মুছে ফেলার সম্প্ররকে তিনি বলেছেন, “আমরা কী জিটি রোড ছুঁড়ে ফেলে দেব? লালকেল্লা কে বানিয়েছে? তাজমহল কে বানিয়েছে?”

জিটি রোড

বিজেপির এই নাম বদল আসলে নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকার প্রয়াস বলে দাবি করেছেন উত্তর প্রদেশের মন্ত্রী ওম প্রকাশ রাজবর। তিনি বলেছেন, “অনগ্রসর এবং পিছিয়ে থাকা মানুষরা যাতে উন্নয়নের দাবিতে আওয়াজ তুলতে না পারে সেই কারণেই শহরের নাম বদল করছে বিজেপি। একমাত্র এই উপায়েই মানুষকে মূল সমস্যা থেকে ভুলিয়ে রাখা যায়।”