উন্নাও: ফের শিরোনামে উন্নাও। এবার ধর্ষিতার গায়ে আগুন লাগিয়ে দিল ধর্ষকেরা। ঘটনায় হতবাক সারা দেশবাসী। যে ব্যক্তিরা ধর্ষণে অভিযুক্ত ছিল তাঁরাই গায়ে আগুন লাগিয়ে দিল তরুণীর।

মার্চ মাসে ধর্ষণের শিকার হন ওই তরুণী। উত্তরপ্রদেশের উন্নাও-তে ঘটেছিল এই ঘটনা। তা নিয়ে ঝড় উঠেছিল সারা দেশে। ধর্ষিতা হওয়ার পরে আরও শক্তি নিয়ে আদালতের সামনে দারিয়েছিলেন নির্যাতিতা।

সেই আদালতে যেতে গিয়েই বৃহস্পতিবার ফের আক্রমণের শিকার হলেন তরুণী। জানা গিয়েছে অল্প কয়েক দিন আগে জামিনে ছাড়া পায় অভিযুক্তরা। ভোর চারটের সময়ে মা-বাবার সঙ্গে রায় বরেলি যাচ্ছিলেন ওই যুবতি। কোর্টে কেসের ব্যাপারেই যাচ্ছিলেন তিনি।

সেইসময় তাঁর রাস্তা আটকে দাঁড়ায় অভিযুক্তরা। গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় তরুণীর গায়ে। তরুণীর চিৎকারে ছুটে আসেন এলাকাবাসী। তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। তরুণীর দেহের ৭০% ই পুড়ে গিয়েছে।

পুলিশের কাছে এই ঘটনায় অভিযুক্তদের নাম জানিয়েছে জানিয়েছে উন্নাও-এর নির্যাতিতা। পুলিশের ডিজিপি ওপি সিং জানিয়েছেন, ‘ এই ঘটনা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। ” অন্যদিকে এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন কংগ্রেসের সাধারণ সচিব প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।