নয়াদিল্লি: করোনার থাবায় বিধ্বস্ত গোটা দেশ। মারণ ব্যাধির সংক্রমণ এড়াতে চলছে দফায় দফায় লকডাউন। তবুও অব্যাহত মৃত্যু মিছিল। আর এই করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই আনলক-২ নিয়ে নয়া নির্দেশিকা জারি করল কেন্দ্রীয় স্ব্ররাষ্ট্র মন্ত্রক। ১জুলাই থেকে সরকারের এই নয়া নির্দেশিকা লাগু হবে দেশজুড়ে।

চলবে ৩১ জুলাই পর‍্যন্ত। তবে বন্ধ থাকবে স্কুল,কলেন,টিউশন, কোচিং ইন্সটিটিউট,রেল,মেট্রো সব কিছুই। এছাড়াও দেশে যে সমস্ত কনটেইনমেন্ট জোনগুলি রয়েছে সেখানে জরুরি পরিষেবা ছাড়া সম্পূর্ণ লকডাউন জারি থাকবে।

কেন্দ্রের এই নয়া নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, আগামী ৩১ জুলাই পর‍্যন্ত সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে, স্কুল,কলেজ, যে,কোনও ধরনের প্রতিষ্ঠান, কোচিং সেন্টার, রেল,মেট্রো, দূরপাল্লার ট্রেন, আন্তর্জাতিক উড়ান, সিনেমাহল,থিয়েটার, সুইমিংপুল,জিম ক্লাব,বার,পার্ক, যেকোনও ধরনের খেলাধুলোর অনুষ্ঠান, রাজনৈতিক,সামাজিক অনুষ্ঠান, ধর্মীয় জমায়েত ইত্যাদি। তবে চলবে অনলাইন পড়াশোনা।

কনটেনমেন্ট জোনে এই লকডাউন বিধিনিষেধ লাগু থাকবে ৩১ জুলাই পর্যন্ত। তারপরে লকডাউন বাড়ানো হবে নাকি ধীরে-ধীরে স্বাভাবিকের দিকে এগবো তা সম্পূর্ণ নির্ভর করছে দেশের করোনা পরিস্থিতি উপর। তবে কনটেনমেন্ট জোনের আওতার বাইরে থাকা এলাকাগুলিকে বেশকিছু ছাড় দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে কনটেনমেন্ট জোনে মেডিকেল সহ বেশকিছু জরুরি পরিষেবা ছাড়া সব কিছুই বন্ধ রাখার নির্দেশ জারি করেছে সরকার। এছাড়াও দশ বছরের কম বয়সী শিশু,৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে বয়স্ক ব্যক্তি, অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে যথাসম্ভব না বেরোনোর পরামর্শ দিয়েছে সরকার।

এখনই আন্তর্জাতিক কোনও উড়ান চালানো হবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে সরকার তবে। আনলক-১ থেকে চালু হয়েছে বেশকিছু ঘরোয়া উড়ান পরিষেবা। তবে এখনই চলবে না কোনও যাত্রীবাহি ট্রেন,মেট্রো।

পরিস্থিতি বিবেচনা করে ধীরে-ধীরে ট্রেন পরিষেবা স্বাভাবিক করার পক্রিয়া শুরু হবে বলে জানানো হয়েছে। এছাড়াও দেশজুড়ে রাত ১০টা থেকে সকাল ৫টা পর‍্যন্ত জারি থাকবে নাইট কার্ফু। তবে নাইট কার্ফু চলাকালীন ছাড় দেওয়া হয়েছে মেডিকেলের মতো জরুরি পরিষেবায়।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV