তেহরান ও ওয়াশিংটন: ইরান বিরোধী প্রস্তাবে সর্বসম্মতি মিলবে যে হবে না তা স্পষ্ট ছিল। ফলে রাষ্ট্রসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে চিন ও রাশিয়ার ভেটো প্রয়োগ হচ্ছেই তা বুঝতে পারছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সেই ভেটো খেয়ে পিছিয়ে আসার কথা স্বীকার করেছেন তিনি।

ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, তিনি জানতেন রাষ্ট্রসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে তোলা ইরান বিরোধী আমেরিকার প্রস্তাব নাকচ হয়ে যাবে। নিউ জার্সিতে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন একথা। অবশ্য মার্কিন প্রস্তাবে ১১টি দেশ বিরত থাকে। এই দেশগুলির বেশ কয়েকটি মার্কিন লবির। কূটনৈতিক মহলের ধারণা, এখানেই ট্রাম্পের বড় ধাক্কা। আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে এই ধাক্কায় কিছুটা ব্যাকফুটে গেলেন তিনি।

অন্যদিকে ইরানের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র সৈয়দ আব্বাস মুসাভি জানিয়েছেন, তেহরানের সক্রিয় কূটনীতি এবং পরমাণু কর্মসূচি ন্যায্য অবস্থানের কারণে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রাষ্ট্রসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ফের পরাজিত হয়েছে।ইরান বিরোধী অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার মার্কিন প্রস্তাব প্রত্যাখ্যাত হয়েছে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, রাষ্ট্রসংঘের ৭৫ বছরের ইতিহাসে নজিরবিহীনভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কোনঠাসা। ওরা একঘরে হয়ে গিয়েছে।

রাষ্ট্রসংঘে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি মাজিদ রাভাঞ্চি বলেছেন, মার্কিন প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা অবৈধ এবং আন্তর্জাতিক শক্তি তা প্রত্যাখ্যান করেছে। এই ঘটনা তারই প্রমাণ। রাশিয়া জানিয়েছে, রাষ্ট্রসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তোলা ইরান সংক্রান্ত প্রস্তাব পাস না হওয়ায় তারা বুঝতে পারছে, তাদের একার অবস্থান কতটা দূর্বল।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।