স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সেখানে তাঁর থেকে ‘বড় মস্তান’ কেউ নেই! চিকিৎসায় অবহেলায় এক শিশুর মৃত্যুর অভিযোগের জেরে উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে বাগবিতণ্ডার মধ্যে এমনই মন্তব্য করেছিলেন মুকুন্দপুরের বেসরকারি এক হাসপাতালের শীর্ষ স্তরের আধিকারিক৷ ওই আধিকারিককে শুক্রবার সাসপেন্ড করল ওই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷ একই সঙ্গে চিকিৎসায় অবহেলার এই ঘটনায় তদন্তের জন্য একটি কমিটি গঠনের কথাও এ দিন জানানো হয়েছে৷

আরও পড়ুন: তিন হাসপাতালের বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত তদন্তে অন্ধকারে স্বাস্থ্য দফতর

সোনারপুরের বাসিন্দা দুই বছর পাঁচ মাসের ঐত্রেয়ী দের মৃত্যুর জন্য চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ উঠেছে৷ এই অভিযোগের জেরে গত বুধবার উত্তপ্ত হয়ে ওঠে মুকুন্দপুরের বেসরকারি ওই হাসপাতাল৷ চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগের জেরে মৃত শিশুর ক্ষুব্ধ পরিজনদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন ওই হাসপাতালের শীর্ষ স্তরের আধিকারিক জয়ন্তী চট্টোপাধ্যায়৷ সেই সময় তাঁর মন্তব্যে এই ‘বড় মস্তানে’র বিষয়টিকে কেন্দ্র করে পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে ওঠে৷ এমন মন্তব্যের জেরে কার্যত কান ধরে ক্ষমা প্রার্থনাও করেন শীর্ষ স্তরের এই আধিকারিক৷

আরও পড়ুন: ইঞ্জিনিয়ার-ডাক্তারের মৃত্যুতে ৭.৬ কোটি টাকার নোটিশ জাতীয় কমিশনের

এ দিকে, মৃত ওই শিশুর পরিজনদের তরফে এই আধিকারিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিও জানানো হয়৷ শুক্রবার মুকুন্দপুরের বেসরকারি ওই হাসপাতালের তরফে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ঐত্রেয়ী দের মৃত্যুর ঘটনায় চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগের ভিত্তিতে অভ্যন্তরীণ তদন্তের জন্য ছয় সদস্যের এক কমিটি গঠন করা হয়েছে৷ এবং, শীর্ষ স্তরের ওই আধিকারিককে এ দিন সাসপেন্ড করা হয়েছে৷ এই কমিটি শুক্রবারই তদন্ত শুরু করেছে বলেও জানানো হয়েছে৷