নয়াদিল্লি: লোকসভায় পাস হলেও রাজ্যসভায় ঝুলে তিন তালাক বিল৷ বিরোধীদের সাহায্য ছাড়া সংসদের উচ্চকক্ষে যে এই বিল পাস করানো সম্ভব নয় তা ভালোই বুঝতে পেরেছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ তাই রাজ্যসভায় এই বিল পাস করাতে এখন বিরোধী দলগুলির কাছে আবেদন করেছেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবি শঙ্কর প্রসাদ৷

জি নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী বলেন, ‘‘এটা মহিলাদের প্রতি বিচারের বিষয়৷ এর সঙ্গে ধর্ম বা রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই৷’’ তিনি কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস ও বহুজন সমাজ পার্টি এই তিনটি বিরোধী দলের সুপ্রিমোর কাছে তিন তালাক বিলকে সমর্থন করার অনুরোধ করেন৷ জানান, সোনিয়া, মমতা ও মায়াবতী এরা দেশের বাঘা বাঘা নেত্রী৷ দেশের স্বার্থে ও মহিলাদের স্বার্থে তাদের এগিয়ে আসা উচিত৷

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, ‘‘সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর তিন তালাক বিরোধী বিল নিয়ে আসে সরকার৷ সেই বিল পরে সংসদের নিম্নকক্ষেও পাশ হয়৷ কিন্তু রাজ্যসভায় সেটা আটকে গিয়েছে৷ সোনিয়া গান্ধী, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও মায়াবতী আপনারা হলেন দেশের সবথেকে বড় নেত্রী৷ আপনাদের কাছে অনুরোধ করব রাজনীতি ছেড়ে এই বিলকে সমর্থন করুন৷’’ বিল পাশ করাতে সরকার এই তিন নেত্রীর সঙ্গেও আলোচনায় বসতে রাজি৷ এমনটাই জানান রবি শঙ্কর প্রসাদ৷

আগামী ১৮ জুলাই থেকে সংসদে শুরু হচ্ছে বাদল অধিবেশন৷ চলবে ১০ অগষ্ট অবধি৷ ২৪ দিনের এই অধিবেশনে ১৮দিন সচল থাকবে লোকসভা৷ এই অধিবেশনে তিন তালাক বিল পাশ করাতে হলে সরকারের হাতে থাকছে ১৮ দিন সময়৷ এর মধ্যে বিল পাশ করাতে না পারলে আবার শীতকালীন অধিবেশনের জন্য বসে থাকতে হবে৷ কিন্তু মোদী সরকার এই বিল পাশ করাতে আর নিতে নারাজ৷

কেননা সামনেই কয়েকটি রাজ্যের বিধানসভা ভোট৷ তারপর লোকসভা নির্বাচন৷ আসন্ন নির্বাচনগুলিতে মুসলিমদের পাশে পেতে এই বিলই হয়ে উঠতে পারে বিজেপির অন্যতম অস্ত্র৷ তাই বাদল অধিবেশনে তিন তালাক বিরোধী বিল পাশ করাতে ঝাপিয়ে পড়বে সরকার৷ কিন্তু বিরোধীদের বাধায় এবারও বিল পাশ করানো যে অত সহজ হবে না তা বিলক্ষণ জানেন মোদী-শাহ জুটি৷

তাই আগে থেকেই বিরোধীদের সহযোগিতা করার অনুরোধ করেছেন সংসদীয় বিষয়ক মন্ত্রী অনন্ত কুমার৷ সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে তিনি জানিয়েছেন, বাদল অধিবেশনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচনা করা হবে৷ অনেক বিল পেশ করা হবে৷ সব বিরোধী দলের কাছে সহযোগিতা ও সমর্থনের অনুরোধ রইল৷