নয়াদিল্লি: সৌদি আরবে ভারতীয় পরিচারিকার হাত কেটে নেওয়ার ঘটনার তীব্র নিন্দা করল ভারত। বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এই ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, এটা কোনও ভাবেই বরদাস্ত করা যায় না৷ একইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে ভারতীয়দের ক্ষোভের  বিষয়টি সৌদি আরব কর্তৃপক্ষকেও জানানো হয়েছে।

এক ভারতীয় পরিচারিকার হাত কেটে নিয়েছিল সৌদি আরবের এক ব্যক্তি৷ কস্তুরি মুনিরথিনামের (৫৫) সৌদিতে পরিচারিকার কাজ করতেন। তাঁর পরিবারের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে কস্তুরির উপর নির্যাতন চলত৷ অত্যাচার সহ্য না করতে পেরে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন সে। সেই কারণেই নিয়োগকারী তাঁর ডান হাত কেটে নেন। কস্তুরি বর্তমানে সৌদিরই একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

বিদেশমন্ত্রীর কথায়, ‘সৌদি আরবে ওই ভারতীয় মহিলার ওপর যে অত্যাচার করা হয়েছে তাতে আমরা খুবই উদ্বিগ্ন’। সৌদি আরবের ভারতীয় দূতাবাস এ ব্যাপারে নির্যাতিতা কস্তুরি মুনিরথিনামের (৫৫) সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছে বলেও জানিয়েছেন স্বরাজ।

টুইটারেও সুষমা ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, রিয়াধে ভারতীয় দূতাবাস সৌদি বিদেশমন্ত্রকের কাছে বিষয়টি উত্থাপন করেছে এবং অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কঠোর সাজার দাবি জানিয়েছে।এই ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্তের দাবিও জানিয়েছে ভারত সরকার। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টার মামলা দায়ের করারও দাবি জানানো হয়েছে ভারতের তরফে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।