ফাইল ছবি

নিউ ইয়র্ক: করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে গোটা বিশ্ব কাঁপছে। স্বাভাবিকভাবেই ধাক্কা খাচ্ছে বিশ্বের অর্থনীতি। আর অবশ্যই তার প্রভাব পড়তে চলেছে কর্মসংস্থানে।

রাষ্ট্রসংঘের লেবার কমিটি অনুমান করছে, শুধুমাত্র করোনা ভাইরাসের জন্য কাজ হারাতে পারেন ১৯৫ মিলিয়ন মানুষ। বিশ্ব জুড়ে একাধিক কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে। ২০২০-র দ্বিতীয়ার্ধে এর প্রভাব বাড়তে শুরু করবে বলেই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

গত ১৮ মার্চ ইন্টারন্যাশনাল লেবার অর্গানাইজেশন জানিয়েছিল ২৫ মিলিয়ন মানুষ কর্মহীণ হতে পারেন। সেই সংখ্যাটাই এবার একধাক্কায় বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। বিশ্ব জোড়া লকডাউনে সারা বিশ্বের ৮১ শতাংশ শমিক প্রভাবিত হয়েছেন বলেও মনে করা হচ্ছে। হোটেল, ফুড সার্ভিসের মত সংস্থাগুলিতেই ১.২৫ বিলিয় মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেন।

অন্যদিকে, মার্কিন মুলুকে বিরাট সংখ্যক কর্মী ছাঁটাইয়ের আশঙ্কায় উদ্বিগ্ন এইচ ওয়ান বি ভিসা হোল্ডাররা। করোনা ভাইরাসের প্রভাবে‌ যেভাবে দুনিয়াজুড়ে ব্যবসা মার খাচ্ছে, তার জেরে ভবিষ্যতে সেখানে থাকা নিয়ে উদ্বেগ বেড়েছে ভারতীয় পেশাদারদের। আর সেই কারণেই ট্রাম্প প্রশাসনের কাছে তারা দাবি করেছেন চাকরি না থাকলেও সে দেশে থাকার অনুমতি ৬০ দিন থেকে বাড়িয়ে ১৮০ দিন করার জন্য।

এইচ ওয়ান বি ভিসা হল নন ইমিগ্রান্ট ভিসা যার মাধ্যমে মার্কিনসংস্থাগুলি সেইসব বিদেশিদের নিয়োগ করে যাদের প্রযুক্তিগত বিশেষ দক্ষতা রয়েছে। যার জন্য বেশ কিছু মার্কিন প্রযুক্তি সংস্থা নির্ভর করে থাকে ভারত এবং চিন থেকে আসা হাজার হাজার এই ধরনের কর্মীদের উপর। বর্তমান ব্যবস্থায় এই এইচ ওয়ান বি ভিসা যাদের আছে‌ তারা ‌ চাকুরী হারালে তার ৬০ দিনের মধ্যে পরিবারসহ তল্পিতল্পা নিয়ে ইউ এস ছাড়তে হয়।

অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞরা যেভাবে আশঙ্কা করছে ‌এই করোনা সংকটের জেরে মার্কিন অর্থনীতি ভেঙে পড়ার দরুন বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যাপক হারে ছাঁটাই হতে পারে। আর সেটা নাকি হতে পারে আগামী কয়েক সপ্তাহ অথবা কয়েক মাসের মধ্যেই। একটি রেকর্ড বলছে, ২১ মার্চ শেষ হওয়া সপ্তাহে ৩.৩ মিলিয়ন মার্কিনী কাজ হারিয়েছেন বলে দাবি করেছেন।‌ অর্থাৎ মার্কিন মুলুকে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ চরমে যাওয়ার দুই সপ্তাহ আগেই আমেরিকায় এত মানুষ কর্মচ্যুত হয়েছে।