রাঁচি: বল হাতে উমেশ যাদব যদি বিশেষ কোনও রেকর্ড গড়েন, সেটা অস্বাভাবিক কিছু নয়৷ তবে যদি বলা হয় কিংবদন্তি সচিন তেন্ডুলকরের কোনও ব্যাটিং রেকর্ড ছুঁয়েছেন উমেশ, সেটা অবাক করে বইকি! এমন অবাক করা কাণ্ডই ঘটিয়েছেন ভারতীয় পেসার৷ রাঁচিতে চলতি গান্ধী-ম্যান্ডেলা সিরিজের তৃতীয় তথা শেষ টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ব্যাট করতে নেমে সচিন তেন্ডুলকর ও প্রয়াত ক্যারিবিয়ান তারকা ফফি উইলিয়ামসের অনবদ্য একটি নজির ছুঁয়ে ফেলেন উমেশ৷

আরও পড়ুন: সানি-বীরুর সঙ্গে এলিট ক্লাসে রোহিত, ৪৯৭ রানে ইনিংস ডিক্লেয়ার ভারতের

ব্যাটিং অর্ডারের ৯ নম্বরে ব্যাট করতে নেমে উমেশ যাদব প্রথম দু’টি বলেই জর্জ লিন্ডেকে গ্যালারিতে ফেলেন৷ ভারতীয় ইনিংসের ১১২ তম ওভারের পঞ্চম ও ষষ্ঠ বলে এই দু’টি ছক্কার সুবাদেই সচিন ও উইলিয়ামসের সঙ্গে একাসনে বসে পড়েন উমেশ৷ এর আগে সচিন ও উইলিয়ামই এমন দু’জন ব্যাটসম্যান ছিলেন, যাঁরা টেস্ট ইনিংসের প্রথম দু’বলে দু’টি ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন৷ উমেশ সেই এলিট ক্লাবের তৃতীয় সদস্য হলেন৷

আরও পড়ুন: দ্বিতীয় দিনের শেষে ম্যাচের রাশ ভারতের হাতে

১৯৪৮ সালে ইংল্যান্ডের জিম লেকারকে প্রথম দু’টি বলেই ছক্কা মেরেছিলেন উইলিয়াসম৷ পরবর্তী সময়ে অস্ট্রেলিয়ার নাথন লায়নের বলে এমন কৃতিত্ব দেখান সচিন৷ উমেশ হলেন চতুর্থ ভারতীয় ব্যাটসম্যান, যিনি টেস্ট ইনিংসের প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকালেন৷ উমেশ ও সচিন ছাড়া ভারতীয়দের মধ্যে এই নজির রয়েছে জাহির খান ও মহেন্দ্র সিং ধোনির৷

আরও পড়ুন: দ্বিতীয় দিনের শেষে ম্যাচের রাশ ভারতের হাতে

শেষমেষ ১০ বলে ৩১ রান করে লিন্ডের বলেই আউট হন উমেশ৷ ততক্ষণে তিনি গড়ে ফেলেছেন আরও একটি রেকর্ড৷ নূন্যতম ২৫ রানের টেস্ট ইনিংস খেলা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে উমেশের এই ইনিংসের স্ট্রাইক রেট (৩১০) সব থেকে বেশি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।