পুণে: দ্বিতীয়দিন থেকে টার্ন করতে পারে বল। পিচ থেকে সুবিধা পাবেন স্পিনাররা। তার আগে প্রথম এক কিংবা দেড়দিন এই পিচ ব্যাটিংয়ের পক্ষে আদর্শ। আর সেই সুযোগ কাজে লাগাতেই পুণেতে দ্বিতীয় টেস্টে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিলেন ভারত অধিনায়ক। বিশাখাপত্তনমে প্রথম টেস্টের উইনিং কম্বিনেশনে একটিমাত্র পরিবর্তন এনে দ্বিতীয় টেস্টে মাঠে নামছে ভারতীয় দল। হনুমা বিহারীর পরিবর্তে দলে এলেন উমেশ যাদব।

অধিনায়ক হিসেবে এদিন পুণেতে ৫০তম টেস্ট খেলতে নামার মাইলস্টোন গড়লেন কোহলি। পিছনে ফেলে দিলেন প্রাক্তন অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে (৪৯ টেস্ট)। সামনে এখন কেবল মহেন্দ্র সিং ধোনি।

আড়াই বছর আগে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে পুণের ‘পুওর’ পিচে দুই ইনিংসে যথাক্রমে ১০৫ ও ১০৭ রানে শেষ হয়ে গিয়েছিল ভারতের ইনিংস। ঘরের মাঠে কোনও টেস্ট ম্যাচে সেটাই এখনও অব্ধি শেষ হার ভারতীয় দলের। আর সেই ম্যাচের পর পুণের পিচ আইসিসি’র কালো তালিকাভুক্তও হয়ে গিয়েছিল। তাই দ্বিতীয় টেস্টে ক্রিকেটমহলের নজর অবশ্যই পুণের পিচের দিকে। তবে প্রথম টেস্টে প্রোটিয়া বোলারদের উপর ছড়ি ঘোরানো ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা একই ফর্মে বিচরণ করেন কীনা, পুণেতে নজর থাকবে সেদিকেও।

পাশাপাশি স্পিন বিভাগে রবি অশ্বিন-রবীন্দ্র জাদেজার উপর ভরসা রাখলেও পেস বিভাগে শক্তি বাড়াতে কোহলির একাদশে জায়গা করে নিলেন উমেশ যাদব। মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান বিহারীর পরিবর্তে যাদবের অন্তর্ভুক্তি ছাড়া বাকি দল অপরিবর্তিত। অন্যদিকে দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশেও একটি পরিবর্তন। বিশাখাপত্তনম টেস্টে তিন স্পিনার খেলানোর ভুল পুণে টেস্ট শুধরে নিল ফ্যাফ ডু’প্লেসি অ্যান্ড কোম্পানি। তাই পিয়েডের পরিবর্তে পুণেতে টেস্ট অভিষেক হতে চলেছে অ্যানরিচ নর্তজের।

ম্যাচের আগেরদিন সাংবাদিক সম্মেলনে প্রোটিয়া অধিনায়ক জানিয়েছিলেন, ‘সঠিক দল নির্বাচন করার সময় চলে এসেছে। ম্যাচ জেতাতে সক্ষম এমন ক্রিকেটারদের খুঁজে বের করতে হবে। ব্যাট হাতে প্রয়োজনীয় রান করার পাশাপাশি ম্যাচে ২০ উইকেট তুলে নিতে পারবে এমন ক্রিকেটারদের নির্বাচন করতে হবে।’ সেই লক্ষ্যেই দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশে এই পরিবর্তন বলে মনে করা হচ্ছে।

একনজরে ভারতীয় একাদশ: রোহিত শর্মা, ময়াঙ্ক আগরওয়াল, চেতেশ্বর পূজারা, বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), আজিঙ্কা রাহানে, ঋদ্ধিমান সাহা (উইকেটরক্ষক), রবিচন্দ্রন অশ্বিন, রবীন্দ্র জাদেজা, ইশান্ত শর্মা, উমেশ যাদব ও মহম্মদ শামি।

একনজরে দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশ: এইডেন মার্করাম, ডিন এলগার, থিউনিস ডি ব্রুইন, তেম্বা বাভুমা, ফ্যাফ ডু প্লেসি (অধিনায়ক), কুইন্টন ডি কক (উইকেটরক্ষক), সেনুরাম মুথুস্বামী, ভার্নন ফিল্যান্ডার, কেশব মহারাজ, কাগিসো রাবাদা ও অ্যানরিচ নর্তজে।