কলকাতাঃ  উলটোডাঙা ফ্লাইওভারে বড়সড় ফাটল। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় হঠাত করেই উল্টোডাঙা ফ্লাইওভারের একাংশে বড়সড় ফাটল দেখা যায়। যা নিয়ে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলে পৌঁছন পূর্ত দফতরের আধিকারিক এবং ইঞ্জিনিয়াররা। পর্যবেক্ষণের পর ফ্লাইওভারটিতে যান চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে।

জানা যাচ্ছে, আগামী তিনদিন এর জেরে ফ্লাইওভার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ঘটনার জেরে ই এম বাইপাসে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। যদিও যুদ্ধকালীন তৎপরতায় ট্র্যাফিক নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছেন পুলিশ আধিকারিকরা।

এই প্রসঙ্গে কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, শহরের প্রত্যেকটি ফ্লাইওভারের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্যে একটি বিশেষ কমিটি তৈরি করা হয়েছিল। আর সেই কমিটি আজ উল্টোডাঙ্গা ফ্লাইওভারের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার সময় ভয়াবহ এই ত্রুটি ধরা পড়ে। জানা যাচ্ছে, আগামীকাল বুধবার ফাটল থাকা জায়গা খতিয়ে দেখবেন পূর্ত এবং পুরসভার ইঞ্জিনিয়রা। থাকবেন ফ্লাইওভারের নির্মান সংস্থার আধিকারিকরাও। তবে এতটা আতঙ্কের কিছু নেই বলে আশ্বাস দিয়েছেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ।

জানা যাচ্ছে, ২০১৩ সালের মার্চ মাসে এই উড়ালপুলের যে অংশ খসে পড়েছিল, ঠিক সেই অংশেই এই ফাটল মিলেছে বলে জানা যাচ্ছে। যদিও ঠিক কোন জায়গায় এই ফাটল ধরা পড়েছে তা পরিস্কার করে প্রশাসনের তরফে জানানো হচ্ছে না। তবে বাইপাস থেকে লেক টাউন গামী এবং লেকটাউন থেকে বাইপাসগামী দুটো ফ্লাইওভারই বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। আর যার ফলে যানজট আরও তীব্র হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

 

প্রসঙ্গত, বছর খানেক পুজোর আগে চালু হয় উল্টোডাঙার বন্ধ হয়ে থাকা ফ্লাইওভার। কারণ গত কয়েক বছর আগে ইএম বাইপাস থেকে এয়ারপোর্টগামী ওই ফ্লাইওভারের রেলিং লরির ধাক্কায় ভেঙে যায়। দুর্ঘটনার জেরে ফ্লাইওভারের একটি অংশ খুলে পড়ে যায় পাশের খালে। বেয়ারিং উল্টো করে লাগানোর কারণেই দুর্ঘটনা ঘটে বলে অনুমান বিশেষজ্ঞদের। এর কয়েক বছর ধরে চলে ফ্লাইওভার তৈরির কাজ। শেষমেশ চালু হলেও ফের বিপদজ্জনক ফাটল ধরা পড়ল ফ্লাইওভারে।