গুয়াহাটি: পরিস্থিতি ঘোরতর। কেন্দ্রীয় সরকারের আনা নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে অসম জুড়ে চলছে বনধ। তার পাশাপাশি ত্রিপুরা ও অন্যান্য উত্তরপূর্বাঞ্চলের রাজ্যেও প্রবল বিক্ষোভ শুরু হয়েছে।

অসমের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা তথা আত্মগোপনকারী আলফা (স্বাধীনতা) কমান্ডার ইন চিফ পরেশ বড়ুয়ার প্রবল হুমকি, কোনওভাবেই এই বিল মানা হবে না। গোপন আস্তানা থেকে বড়ুয়া যে বার্তা দিয়েছেন তার জেরে অসমের প্রশাসনিক মহলে তীব্র চাঞ্চল্য।

মঙ্গলবার সকালে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে নেসো(নর্থ-ইস্ট স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশন) এর ডাকা ১১ ঘণ্টার বনধে উত্তপ্ত অসম সহ অন্যান্য রাজ্যগুলি। ডিব্রুগড়ের পরিস্থিতি উত্তেজনাপূর্ণ। এছাড়া ধেমাজি, গুয়াহাটি, কাছাড়ের সর্বত্র বনধের বড় প্রভাব পড়েছে।

বনধকে ঘিরে বিক্ষিপ্ত অশান্তির মাঝেই ডিব্রুগড়ে সশস্ত্র বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন আলফা (স্বাধীনতা)-এর পতাকা উড়তে দেখা যায়। এতে আরও চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। আশঙ্কা, আলফা (স্বাধীনতা) নাশকতা চালাতে পারে। এর জেরে চিন্তিত প্রশাসন।

এদিকে সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া বার্তায় পরেশ বড়ুয়া জানান, কেন্দ্রীয় সরকারকে এভাবে দেওয়া হুঁশিয়ারিতে কোনও কাজ হবে না। দরকার সবাই-কে পাশে নিয়ে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের তীব্র বিরোধিতা। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা অগপ প্রধান প্রফুল্ল কুমার মোহন্তের ভূমিকা নিয়েও তীব্র কটাক্ষ করেম বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা পরেশ বড়ুয়া।

মোহন্তকে গুপ্তঘাতক বলে চিহ্নিত করেছেন মোস্ট ওয়ান্টেড বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা তথা আলফা (স্বাধীনতা) সংগঠনের প্রধান। আলফা (স্বাধীনতা) কোনওরকম কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে আলোচনা ছাড়াই নিজেদের সশস্ত্র অবস্থানে অহমীয়াদের জন্য আন্দোলনে অনড়। সংগঠনের নিষিদ্ধ থাকার মেয়াদ আরও বাড়িয়েছে সরকার।

গোয়েন্দা বিভাগ আগেই জানিয়েছে, বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা পরেশ বড়ুয়া চিন ও মায়ানমারের সীমান্তবর্তী দুর্গম এলাকায় ঘাঁটি তৈরি করেছে। সেখানেই তার বেশি আনাগোনা।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে পাশ করিয়েছে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। এই সংশোধনীতে প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলির হিন্দুদের জন্য ভারতের নাগরিক হওয়ার পথ আরও সরল করা হয়েছ। বিলের বিরোধিতা করেছে বিরোধীদের দাবি, এই বিল আদতে ধর্মনিরপেক্ষ ভারতের সংবিধানে আঘাত দিয়ে ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব প্রদানের পথ।

বিলের বিরোধিতায় উত্তপ্ত হয়ে গিয়েছে অসম, ত্রিপুরা সহ উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলি। বিভিন্ন রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতাসীন। একাধিক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরাও নাগরিকত্ব সংশোধনীর বিরুদ্ধে গিয়েছেন।

বিলের প্রতিবাদে অসম জুড়ে চলছে বনধ। সেই বনধের ছাপ পড়েছে রাজ্যের সর্বত্র। ত্রিপুরাতেও বিলটির বিরুদ্ধে যাওয়া উপজাতি সংগঠনের সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি হয়।