নয়াদিল্লি: নারীশিক্ষার বিষয়ে এগিয়ে এল ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশন (ইউ জি সি)। সমাজের পিছিয়ে পড়া ও সুযোগ থেকে বঞ্চিত নারীদের সামনের সারিতে তুলে ধরতে আরও একধাপ এগোল তাঁরা। এবার দেশের সমস্ত ইউনিভার্সিটি ও কলেজেই স্থাপন করা হবে নারীশিক্ষার কেন্দ্র।

সমাজের পিছিয়ে পড়া ও সুবিধা বঞ্চিত নারীদের ক্ষেত্রে বিশেষ নজর দেবে এই নারী শিক্ষা কেন্দ্রগুলি৷ এই বিষয়ে প্রস্তাবও পেশ করা হয়েছে তাঁদের তরফ থেকে।

ইউজিসি’র এক সিনিয়র অফিসর জানান, ” নারী শিক্ষা কেন্দ্র বিশেষ নজর দেবে সমাজের পিছিয়ে পড়া ও সুবিধা বঞ্চিত নারীদের প্রতি। এদের মধ্যে রয়েছে তপশীলী জাতি ও উপজাতির মহিলা, প্রতিবন্ধী মহিলা, নিরাপদ নয় এমন পরিবেশে বসবাস করা মহিলারা। “

এই কেন্দ্রগুলি যেসব বিষয়ে নজর দেবে সেগুলি হল – সামাজিক বিকাশের ক্ষেত্রে ভারতীয় নারীদের বিভিন্ন রকম চাহিদা পূরণ করা, বিশ্ব তথা জাতীয় ক্ষেত্রে মহিলা বিষয়ক আধুনিক জ্ঞান গঠন এবং নারী শিক্ষার বিষয়ে উন্নত পাঠ্যক্রম তৈরি। “

একই সাথে নারী ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন বিষয়ে প্রমাণ ভিত্তিক গবেষণা পরিচালনা এবং সকল খাতের উন্নয়নে নারীর অন্তর্ভুক্তির পদ্ধতি তুলে ধরার পরামর্শের ওপরও জোর দেওয়া হবে৷

এই কেন্দ্রগুলির নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিনিয়ত মূল্যায়ন করবে ইউজিসি। প্রতি বছর এই কেন্দ্রের প্রধান কাজ নিয়ে একটি রিপোর্ট উপস্থাপন করবেন। সেই সঙ্গে উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হবে এবং এই কমিটিগুলির সদস্যদের মারফৎ সমস্ত তথ্য পাওয়া যাবে।

এই প্রতিবেদনে সাফল্য এবং পদক্ষেপ গ্রহণ সম্পর্কিত, পরিমাণগত ও সংখ্যাগত তথ্য থাকবে। কেন্দ্রগুলির মূল্যায়ন হবে শিক্ষা প্রদান, গবেষণা, বর্ধিত ক্রিয়াকলাপ, সেমিনার, ওয়ার্কশপ, স্পেশাল লেকচার, ফিল্ড অ্যাকশন, ডকুমেন্টেশন, মহিলা সংরক্ষণ অন্যান্য ইউজিসি, নন – ইউজিসি, সরকারী প্রকল্প ও এনজিও কেন্দ্রগুলির সঙ্গে পার্টনারশিপ স্থাপন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ