মুম্বই: বৃহস্পতিবার মহারাষ্ট্রের শিবাজি পার্কে মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিতে চলেছেন সেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। যার ফলে মনে করা হচ্ছে দীর্ঘ বেশ কয়েকদিন ধরে চলা নাটকের অবশেষে পরিসমাপ্তি ঘটবে এই ঘটনার মধ্য দিয়ে। শপথ গ্রহণের আগে আদিত্য ঠাকরে বুধবার কংগ্রেসের অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট সোনিয়া গান্ধির সঙ্গে দেখা করেছিলেন। এছাড়াও প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সঙ্গে দেখা করে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আসার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর দফতরে আমন্ত্রনপত্র পাঠিয়ে উদ্ধব ঠাকরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকেও আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী আগামী মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধবকে শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন। এছাড়াও তিনি ৪০০ জন চাষিকেও শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। এই ৪০০ জন চাষি মহারাষ্ট্রের বিভিন্ন জেলা থেকে যোগ দেবেন।

এনসিপি নেতা প্রফুল্ল প্যাটেল জানিয়েছেন, মহারাষ্ট্রের উপমুখ্যমন্ত্রী পদ যাবে তাঁদের দলের কাছে। অর্থাৎ উপমুখ্যমন্ত্রী হবেন এনসিপির নেতা। আর স্পিকার পদ যাবে কংগ্রেসের কাছে বলেও জানিয়েছিলেন।

তিন দলের শীর্ষ নেতার মিলে ঠিক করবেন স্পিকার কে হবে। যদিও এই পদ যাবে কংগ্রেসের কাছে। এমনটাই জানিয়েছেন প্রফুল্ল প্যাটেল। যদিও তিনি জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত কতজন মন্ত্রী মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে শপথ নেবেন তা জানা যায়নি।

মহা বিকাশ আঘাদি (সেনা, এনসিপি, কংগ্রেস) জোট বুধবার ঠিক করেন স্পিকার পদ যাবে কংগ্রেসের কাছে। আর ডেপুটি বা উপ মুখ্যমন্ত্রী পদ পাবেন এনসিপি। আর স্পিকার পদ কংগ্রেসের কাছে যাওয়ার পর প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী পৃথ্বীরাজ চাবানের এই পদে বসার সম্ভবনা যথেষ্ট জোরালো হয়ে উঠেছে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে দলের গুরুত্বপূর্ণ কাজ সামলেছিলেন এবং পাশাপাশি মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন।

মঙ্গলবার এই রাজ্যর মুখ্যমন্ত্রী পদের জন্য উদ্ধব ঠাকরের নাম ঠিক করা হয়। যা তিন দলই সমর্থন জানিয়েছিলেন। কেননা সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করতে না পারার কারণে এই পদ থেকে পদত্যাগ করেছিলেন দেবেন্দ্র ফড়নবীশ। আর তারপরে শিবসেনা কংগ্রেস এবং এনসিপি তাঁকেই এই পদের জন্য যোগ্য হিসেবে মনোনীত করেছেন।