ওয়াশিংটনঃ  চিন ও তাইওয়ানের মধ্যে বাড়তে থাকা উত্তেজনার মধ্যেই দুই ঘুরপাক পেল মার্কিন যুদ্ধ জাহাজ। ভূখণ্ডের মধ্যবর্তী তাইওয়ান প্রণালী দিয়ে আমেরিকার দুটি যুদ্ধ জাহাজ পার হয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে ওই এলাকায়। মার্কিন নৌবাহিনীর এই উস্কানিমুলক কাজকে তাইওয়ানের প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থন হিসাবেই দেখা হচ্ছে।

রয়টার্সকে দেওয়া এক বিবৃতিতে প্রশান্ত মহাসাগরের থাকা যুদ্ধজাহাজের মুখপাত্র ক্যাপ্টেন চার্লি ব্রাউন বলেছেন, ৭-৮ জুলাইতে মার্কিন নেভির দুটি জাহাজ রুটিন টহল হিসাবেই তাইওয়ান প্রণালীর আন্তর্জাতিক জলসীমা ধরে এগিয়ে গিয়েছে। যুদ্ধ জাহাজগুলি দক্ষিণ চিন সাগর থেকে পূর্ব-চিন সাগরে যেতে তাইওয়ান প্রণালীটি ব্যবহার করেছে এবং অনেক বছর ধরেই এমনটি করে আসছে। এতে এত উত্তেজনা সৃষ্টি হওয়ার মতো কিছু হয়নি বলেই দাব ক্যাপ্টেনের। যদিও মার্কিন আধিকারিকরা জানিয়েছেন, যুদ্ধজাহাজ ইউএসএস মাস্টিন ও ইউএসএস বেনফোল্ড শুধুমাত্র ওই প্রণালীটি ব্যবহার করেছে।

এর আগে শনিবার তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক জানিয়েছিল, মার্কিন নেভির যুদ্ধজাহাজগুলি দুটি উত্তর-পূর্ব মুখে অগ্রসর হচ্ছে। এবং আইন মেনেই তা করা হচ্ছে। তাইওয়ানের সঙ্গে ওয়াশিংটনের কোনও আনুষ্ঠানিক সম্পর্ক নেই, কিন্তু মার্কিন আইন অনুযায়ী তারা তাইওয়ানের আত্মরক্ষার সহায়তা দিতে বাধ্য এবং দ্বীপটির সমরাস্ত্রের সবচেয়ে বড় উৎস।

অন্যদিকে, তাইওয়ানকে নিজেদের দেশের অবিচ্ছেদ্য অংশ মনে করে চিন। তাইওয়ান স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়ার চেষ্টা করলে সামরিক অভিযানের মাধ্যমে চিনের অখণ্ডতা বজায় রাখায় অঙ্গীকার জানিয়ে রেখেছে বেজিং। আমেরিকার সঙ্গে তার সম্পর্কের ক্ষেত্রে তাইওয়ান সবচেয়ে স্পর্শকাতর ইস্যু বলে নিয়মিত জানিয়ে আসছে লালচিন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ