ওয়াশিংটন: শুক্রবার কয়েক হাজার লোক বাগদাদে মার্কিন দূতাবাস চত্বরে হামলা চালানোর পরে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র প্রায় তিন হাজার সৈন্যকে মধ্য প্রাচ্যে পাঠিয়েছে। শুক্রবার এনবিসি নিউজকে এই তথ্য জানিয়েছেন তিন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা এবং আমেরিকার এক সামরিক কর্মকর্তা।

আমেরিকার এয়ারস্ট্রাইকের সোলেমানের মৃত্যুর পরেই এই সেনা পাঠানোর খবর সামনে আসে। তবে আমেরিকার তরফে জানানো হয়েছে, এয়ারস্ট্রাইকের সঙ্গে ওই সেনা মোতায়েনের কোনও সম্পর্ক নেই।

বিক্ষোভকারীরা দূতাবাস এলাকায় গিয়ে যেখানে তারা নিরাপত্তা লঙ্ঘন করতে সচেষ্ট হয়। এমনকি তাঁরা বাড়ির দেওয়ালও ভেঙে ফেলে আগুন লাগাতে উদ্যোগী হয় বলেও খবর।

সেনা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ওই অঞ্চলে আগেই মোতায়েন ছিল ৬৫০ জন। তাঁদের সঙ্গে যোগ দেবে নতুন সেনা। প্রায় ৬০ দিন সেখানে থাকবে বলে জানা গিয়ছে।

আরও পড়ুন – একাধিক শহরে নাশকতার আশঙ্কা, জারি হাই অ্যালার্ট

উল্লেখ্য, শুক্রবার সকালে বাগদাদ বিমানবন্দরে হামলায় উচ্চপদস্থ সেনা আধিকারিকের মৃত্যু হয়েছে। ইরানের কম্যান্ডার কাশেম সোলেইমানি এবং ইরাকের ডেপুটি হেড হাশেদ-আল-শাবির দলের সেনারা মারা গিয়েছেন।

ইরানে এয়ারস্ট্রাইকের পর হাই অ্যালার্ট জারি করা হয় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। আশঙ্কা করা হচ্ছে বদলা নিতে স্লিপার সেল নাশকতা মূলক কাজকর্ম ঘটাতে পারে একাধিক শহরে।

লস অ্যাঞ্জেলেস শহরের পুলিশ বিভাগ জানিয়েছে যে, শহরটির ওপর বর্তমানে কোনও বিশ্বাসযোগ্য হুমকি না থাকলেও তারা ইরানের ঘটনা কোনদিকে গড়ায় তার দিকে কড়া নজর রাখছে। পাশাপাশি লস অ্যাঞ্জেলেস-এর নিরাপত্তা সঠিক রাখতেও তাঁরা বদ্ধ পরিকর।