অটোয়া: ‘লাইফ ইজ শর্ট। হ্যাভ অ্যান অ্যাফেয়ার।’ স্লোগানের সঙ্গে দুটি মৃত্যুর যোগ পাচ্ছে পুলিশ। কানাডার দুই বাসিন্দা সোমবার সকালে আত্মহত্যা করেছেন। টরোন্ট পুলিশের ধারণা এই দুই মৃত্যুর সঙ্গে যোগ রয়েছে অ্যাশলে ম্যাডিসন ডেটিং সাইটের। ওই ওয়েবসাইট হ্যাক হওয়ায় ব্যক্তিগত তথ্য বাইরে বেড়িয়ে পড়ায় ভয়েই আত্মহত্যা করেছেন দু’জনে। পুলিশের অনুমান এই ডেটিং সাইটে যে সব তথ্য হ্যাক হয়েছে তার বেশিরভাগই কানাডার বাসিন্দাদের। ফলে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। তবে হ্যাক হওয়ার ৭২ ঘণ্টা কেটে গেলেও এখনও সেভাবে কোনও কূলকিনারা করতে পারেনি পুলিশ।

বিবাহিত জীবনের বা ব্যাচেলার থাকার একঘেয়েমি কাঁটাতে এক জীবনে অগুনতি সম্পর্কের সুযোগ দিয়েছে ডেটিং ওয়েবসাইট ‘অ্যাশলে ম্যাডিসন’। ২০০১ সাল থেকে পথচলা শুরু এই ওয়েবসাইটটি ভারতে আসে ২০০৬ সালে। সব ভালই চলছিল। হঠাত হ্যাক হয়ে গেল ‘অ্যাশলে ম্যাডিসন’। ফলে সামনে এসেছে এক বড় তালিকা। আর সেই তালিকা বলছে, সারা বিশ্ব জুড়ে ‘অ্যাশলে ম্যাডিসন’-এর শরণাপন্ন হয়ে বিয়ের বাইরে যৌন উত্তেজনার স্বাদ নিচ্ছেন অসংখ্য মানুষ! যার সিংহভাগ আবার ভারতীয়!

এমনিতে কিন্তু ‘অ্যাশলে ম্যাডিসন’-এর দ্বারস্থ হওয়াটা বেশ ঝক্কির ব্যাপার! রীতি মতো গাঁটের কড়ি গুনে পছন্দসই যৌন সঙ্গী খুঁজতে হয় এখানে। তার জন্য আবার দরকার হয় একটা ক্রেডিট কার্ড। সেই ক্রেডিট কার্ডের নম্বরটা একটু কষ্ট করে টাইপ করে ফেললেই অর্ধেক কাজ হয়ে যায়। তার পর শুধু কয়েকটা ধাপ পেরনো বাকি! ‘অ্যাশলে ম্যাডিসন’-কে জানিয়ে দিতে হয় নিজের যৌন পছন্দ-অপছন্দগুলো। এই যেমন, ছেলে চাই না মেয়ে, নিজের শরীরের গড়নটি কেমন, কেমনতর সুখের জন্য ইদানীং হন্যে আছেন ইত্যাদি প্রভৃতি! ব্যস, আর কী! তার পরে নিখাদ ইচ্ছেপূরণ!

আর যদি মন না ভরে? তবে, গুণে গুণে সব পয়সা ফেরত— কোনও ভুলচুক রাখে না ‘অ্যাশলে ম্যাডিসন’ টাকা-পয়সার অ্যাফেয়ারে। শুধু একটা ব্যাপারে ১৯ ডলার ইউজারের কাছে না নিয়ে ছাড়ে না এই ওয়েবসাইট। ইউজার ১৯ ডলার ফেললে তবেই একমাত্র তার গোপন সব তথ্য মুছে দেয় এরা।

হ্যাকারদের ফাঁস করা তালিকা বলছে, এ দেশে বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্কের রাজধানীও দিল্লি। নয়াদিল্লিতে এই ওয়েবসাইটে গিয়ে বিয়ের বাইরে যৌন সম্পর্ক পাতিয়েছেন ৩৮,৬৫২ জন। তার ঠিক পরেই রয়েছে মুম্বই— সেখানে পরিসংখ্যানটা ৩৩,০৩৬ জনের। এমনিতেই নানান রকম ব্যাপারে গোঁড়া বলে দক্ষিণীদের একটা বদনাম আছেই, ‘অ্যাশলে ম্যাডিসন’-এর ক্ষেত্রেও সেই গোঁড়ামি কাজ করেছে ভালরকম। তাই চেন্নাইয়ে দেখা যাচ্ছে এই ওয়েবসাইটে বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্কে সাড়া দিয়েছেন মাত্র ১৬,৪৩৪ জন। আর বাঙালিরা? খোলামেলা স্বভাবের সদর্থক-নঞর্থক দিকগুলো আর অর্থনৈতিক কার্যকারণ নিয়ে কলকাতায় অনুরাগীর সংখ্যা মাত্র ১১,৮০৭!

কেবল মেট্রো শহরগুলো নয়। হায়দরাবাদে ১২,৮২৫ জন ‘অ্যাশলে ম্যাডিসন’ অনুরাগীদের খোঁজ দিয়েছে হ্যাকাররা। বেঙ্গালুরুর উচ্ছ্বল জীবনযাত্রা নিয়ে রক্ষণশীলরা যতই চোখ কপালে তুলুন না কেন, সেখানে সংখ্যাটা ১১,৫৬১। আহমেদাবাদে ৭০০৯ জন, চণ্ডীগড়ে ২৯১৮ জন, জয়পুরে ৫০৪৫ জন, লখনৌতে ৩৮৮৫ জন অনুরাগী মিলেছে। হিসেবের দিক দিয়ে দেখলে ভারতে বিয়ের মর্যাদা এখনও পর্যন্ত পটনাতেই বেশি। সেখানে এই ওয়েবসাইটকে স্বীকৃতি দিয়েছেন গুণে গুণে ঠিক ২৫২৪ জন।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।