স্টাফ রিপোর্টার , হাওড়া : একজনের বয়স সবে নয় আরেকজনের পনেরো। ওরাও বিশ্বজুড়ে করোনার আগ্রাসন সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। লকডাউন আর তার জেরে উদ্ভূত অর্থনৈতিক সঙ্কট তাদেরও ভাবিয়ে তুলেছে। তাই নিজেদের জমানো অর্থ মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করল গ্রামীণ হাওড়ার আমতার তাজপুরের দু’ই পড়ুয়া অঙ্কন পাল ও তার বোন অস্মিতা পাল।

অঙ্কন মুকুন্দপুরের হেলেন কেলার বধির স্কুলের দশম শ্রেণীর ছাত্র। অন্যদিকে,অস্মিতা স্থানীয় তাজপুর বালিকা বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীতে পাঠরতা।মৃদু হেসে অস্মিতা জানায়,”প্রতিবছরই দুর্গাপুজোর সময় আমাদের আত্মীয়রা পুজো দেখতে বেশ কিছু টাকা দেন।তা আমরা সঞ্চয় করে রাখি।এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে আমি এবং আমার দাদা মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য অনলাইনে মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ১০০০ টাকা করে পাঠালাম।” অস্মিতা আরও জানায়,”টিভিতে দেখছি কেউ রাস্তায় বেরোচ্ছেনা।আবার শুনছি বাইরে বের হলে পুলিশে ধরবে।আমার দাদা সবসময় বাইরে যায় সেও এখন বেরোচ্ছেনা।মা-বড়োমাও বাইরে যেতে বারণ করেছে।আমিও সকলকে অনুরোধ করছি বাইরে না বেরোনার।তারপরই আমার কাকু সুকান্ত পালের কাছে এই টাকা পাঠাবার ইচ্ছে প্রকাশ করি।এই অবস্থায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে আমাদের দু’জনের তরফে এই ক্ষুদ্র উদ্যোগ।”

করোনার প্রকোপ ঠেকাতে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। পশ্চিমবঙ্গেও বন্ধ দোকানপাট, শুনশান রাস্তাঘাট। মিলছে শুধু জরুরি পরিষেবা। করোনা মোকাবিলায় তৎপর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিনামূল্যে রেশন বিলি থেকে শুরু করে করোনা চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে বিশেষ বন্দোবস্ত, একাধিক পদক্ষেপ করেছেন তিনি। করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য ত্রাণ তহবিলও গড়েছে রাজ্য সরকার। সেখানেই রাজনৈতিক নেতা থেকে অভিনেতা , খেলোয়াড়রা তাঁদের সামর্থ্য মতো অর্থ দান করছেন। সেই তালিকায় নাম লেখালো এি দুই ক্ষুদেও।