কলকাতা: করোনা আক্রান্ত বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের দুই স্বাস্থ্য কর্মী৷ তারা হাসপাতালের যে আবাসনে থাকতেন,সে দুটি আবাসনকে কন্টেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷ ফলে আবাসনে ঢোকা-বেরোনোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হল৷

আবাসিকদের মেনে চলতে হবে বেশ কিছু নিয়ম৷ আক্রান্ত স্বাস্থ্য কর্মীরা যে আবাসনে থাকতেন,সেই আবাসনে যারা আছেন, তারা বাইরে বের হতে পারবেন না৷ আপাতত হাসপাতাদের কাজেও যোগ দিতে নিষেধ করা হয়েছে৷ এছাড়া বাইরে থেকে ওই আবাসনে কেউ ঢোকতে পারবে না৷ আবাসিকদের কিছু দরকার হলে তা, প্রশাসন ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করবে৷

এছাড়া ওই আবাসনের কারোর উপসর্গ দেখা দিলে নমুনা পরীক্ষা হবে৷ পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে এক সপ্তাহ পর সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

প্রসঙ্গত,করোনা আক্রান্ত বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালের এক নার্স এবং দুই সাফাই কর্মী৷ গত কয়েকদিন ধরে এই তিন জনেরই করোনা উপসর্গ, জ্বর, গলাব্যথা, সর্দি-কাশি ছিল৷ ফলে আক্রান্তদের আইসোলেশনে পাঠানো হয়৷ পাশাপাশি তাঁদের লালারসের নমুনা পরীক্ষা করতে পাঠানো হয়৷

সেই নমুনা রিপোর্ট পজিটিভ আসতেই আক্রান্তদের বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে৷ করোনা আক্রান্ত এই তিনজনেরই শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল আছে, ভয়ের কারণ নেই বলে জানিয়েছে আইডি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷

একের পর এক আক্রান্ত হচ্ছেন চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীরা৷ শুধু আক্রান্ত নয় মৃত্যুও হচ্ছে অনেকের৷ জানা গিয়েছে,এখনও পর্যন্ত রাজ্যে প্রায় ১৫০ জন চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী করোনা আক্রান্ত৷ মারণ ভাইরাসের থাবায় প্রাণ হারিয়েছেন দুই চিকিৎসক৷ তারপরও প্রথম সারিতে থেকেই অদৃশ্য শত্রু করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছেন তারা৷

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।