স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ভাটপাড়ায় উপনির্বাচনে অশান্তির ঘটনায় দায়ী দুই স্থানীয় পুলিশ অফিসার এবং সাতজন স্থানীয় দুষ্কৃতী – রাজ্যপাল কেশরিনাথ ত্রিপাঠীর কাছে অভিযোগ জানিয়েছে বিজেপি।

রাজ্যপালকে বিজেপির তরফে যে চিঠি দেওয়া হয়েছে, সেখানে স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে, ভাটপাড়া থানার পুলিশের সামনেই অশান্তির ঘটনা ঘটেছে। এক অফিসার এবং এক সাব-ইন্সপেক্টর দুষ্কৃতীদের সমর্থন করেছেন। এমনকী, কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ভুল রাস্তায় নিয়ে গিয়েছেন। বাহিনী গিয়ে পৌঁছেছে শান্তিপূর্ণ জায়গায়। কিন্তু, অন্যদিকে একটি গোষ্ঠী তখন তাণ্ডব চালাচ্ছে। নেতৃত্বে রয়েছে , ওই সাত গুণ্ডা। ভাটপাড়া থানার ওই অফিসাররা শাসকদল আশ্রিত গুণ্ডাদের তাণ্ডব দেখেও নীরব দর্শক হয়ে থেকেছেন।

ওই চিঠিতে দ্ব্যর্থহীন ভাষায় রাজ্যপালকে জানানো হয়েছে, ভাটপাড়ার নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ভাবে শুরু হয়েছিল। কিন্তু সকাল ১০টা নাগাদ গণ্ডগোল শুরু হয়। একটি গোষ্ঠীর লোকজন অন্য গোষ্ঠীর মহিলা-পুরুষদের ভোটের লাইনে দাঁড়াতে বাধা দিতে শুরু করে। তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী মদন মিত্র কাকিনাড়াতে ভোটের লম্বা লাইন দেখে দুষ্কৃতীদের গণ্ডগোলে ইন্ধন দিয়েছেন। থানার ওই দুই অফিসারের সামনেই সাত দুষ্কৃতীর নেতৃত্বে গুণ্ডারা ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, বোমা-গুলি চালাতে থাকে।

বিজেপি চিঠিতে জানিয়েছে, ভাটপাড়া পুরসভার ৭ থেকে ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে ব্যাপক একটি নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর উপর অত্যাচার চালিয়েছে অন্য গোষ্ঠী। তাদের ঘর জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। কাকিনারা রণক্ষেত্রের চেহারা নেয়। বোমা-গুলি-পাথর কিছুই বাদ ছিল না। পুলিশ দুষ্কৃতীদের না ধরে বারাকপুরের বিজেপি প্রার্থী অর্জুন সিংকে গ্রেফতার করতে তার বাড়ি মজদুর ভবনের দিকে রওনা হয়।

রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ, সহ সভাপতি জয়প্রকাশ মজুমদার এবং সাধারণ সম্পাদক রাজু ব্যানার্জী এবং সঞ্জয় সিং এই চিঠি রাজ্য পালকে হাতে তুলে দিয়েছেন। প্রসঙ্গত, ভাটপাড়ায় আপাতত ১৪৪ ধারা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন।