করোনা ভাইরাস

কলকাতা: লন্ডন-ফেরত আরও দুই যাত্রীর মধ্যে নোভেলকরোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। গত ২০ ডিসেম্বর কলকাতা বিমানবন্দরে নামার পরেই তাঁদের করোনা পরীক্ষা করানো হয়েছিল। সেই পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। ইতিমধ্যেই ওই দু’জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে এই দুই যাত্রীর শরীরে করোনার নয়া স্ট্রেন মিলেছে কিনা তা এখনও জানা যায়নি। আগেই এই বিমানের এক যাত্রীর শরীরে মিলেছে করোনার নয়া স্ট্রেন।

করোনা নিয়ে উদ্বেগ নতুন বছরের শুরুর দিনেও রয়েই গিয়েছে। লন্ডন ফেরত আরও দুই যাত্রী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বলে জানা গিয়েছে। গত ২০ ডিসেম্বর কলকাতা বিমানবন্দরে নামার পরেই তাঁদের করোনা পরীক্ষা করানো হয়েছিল।

সেই পরীক্ষাতেই রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তাঁদের হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর আগেও লন্ডন ফেরত এক যুবকের শরীরে করোনার নয়া স্ট্রেনর হদিশ মেলে যা নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে। তবে নতুন করে এই দুই করোনা আক্রান্তের শরীরে করোনার নয়া স্ট্রেনের হদিশ মিলল কি না তা এখনও জানা যায়নি।

উল্লেখ্য, গত ২০ ডিসেম্বর লন্ডন থেকে কলকাতায় নামা বিমানে মোট ২২২ জন যাত্রী এসেছিলেন। তাঁদের মধ্যে ৭ জনের নমুনা জিনোম সিকোয়েন্সের জন্য পাঠানো হয় কল্যাণীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বায়োমেডিক্যাল জিনোমিক্সে।

পরীক্ষায় এক যুবকের শরীরে করোনার নয়া স্ট্রেনের হদিশ মেলে। তারপরেই ওই বিমানে আসা সব যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যাপারে তৎপরতা নেয় রাজ্য সরকার। নমুনা পরীক্ষায় আরও দু’জনের শরীরে মিলেছে করোনাভাইরাস। দু’জনকেই বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে এই দুই যাত্রীর শরীরে করোনার নয়া স্ট্রেন রয়েছে তা এখনও জানা যায়নি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।