রাঁচি: চিকিৎসায় গাফিলতি কোনও নতুন খবর নেই। প্রায়ই খবরের শিরোনামে জায়গা করে নেয় চিকিৎসক কিংবা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের গাফিলতির খবর। তবে এবার এক চিকিৎসক যা বললেন, তাতে চোখ কপালে উঠল রোগীর।

ঝাড়খণ্ডের ছাত্রা জেলার ঘটনা। পেটে ব্যাথা নিয়ে ডাক্তারের কাছে যেতেই তিনি প্রেসক্রিপশনে লিখে দিলেন ‘প্রেগন্যান্সি টেস্ট।’ এমনিতেই আজকাল ডাক্তারের কাছে গেলেই টেস্ট করানোর লম্বা ফর্দ ধরিয়ে দেওয়া হয়। তাই বলে পুরুষ রোগীকে প্রেগন্যান্সি টেস্ট করতে দেওয়ার ঘটনা একেবারে অভিনব।

মুকেশ কুমার নামে এক সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছে। শুধু প্রেগন্যান্সি টেস্টই নয়, সেইসঙ্গে এইচআইভি ও হিমোগ্লোবিন পরীক্ষাও করতে দেওয়া হয়েছে। গোপাল গানঝু ও কামেশ্বর জানহু নামে দুই ব্যক্তির সঙ্গে এই ঘটনা ঘটেছে।

এরা দু’জনেই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। ঘটনায় তদন্তের নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। যদিও ওই ঘটনার কথা অস্বীকার করেছেন ওই চিকিৎসক।

এমন ঘটনা প্রথম নয়। এর আগে ইস্ট সিংভূম জেলার এক চিকিৎসক মহিলার পেটে ব্যাথার দাওয়াই হিসেবে কন্ডোম দিয়েছিলেন। মহিলা যখন প্রেসক্রিপশন নিয়ে ওষুধ দোকানে যান, তখন দেখেন প্রেসক্রিপশনে লেখা আছে কন্ডোমের নাম।