জম্মু: সুযোগের অপেক্ষায় জঙ্গিরা৷ কাশ্মীর সীমান্তে অনুপ্রবেশ করার সুযোগের অপেক্ষায় ওত পেতে বসে পাকিস্তান মদতপুষ্ট দুই জঙ্গি সংগঠনের সক্রিয় সদস্যরা৷ এমনই তথ্য দিয়েছে ভারতীয় গোয়েন্দা বিভাগ৷

রিপোর্ট বলছে জম্মু কাশ্মীরের সীমান্তবর্তী এলাকা রাজৌরি বরাবর নিয়ন্ত্রণরেখা দিয়ে ভারতে প্রবেশের চেষ্টা চালাচ্ছে জঙ্গিরা৷ দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে এই জঙ্গিরা অনুপ্রবেশের চেষ্টা করছে৷ প্রতিটি গ্রুপে কমপক্ষে ৫জন করে সশস্ত্র জঙ্গি রয়েছে বলে খবর৷ পাক অধ্যুষিত কাশ্মীর থেকে একটি কালো রংয়ের গাড়িতে এই জঙ্গিরা এসেছে৷ কোটলি সন্ত্রাস প্রশিক্ষণ শিবির থেকে এদের নিয়ে আসা হয়েছে নিকিয়াল এলাকায়৷

আরও পড়ুন : ‘আমার স্তনের আকার নিয়ে আমি গর্বিত’, ট্রোলের মুখে সপাট ‘চড়’ স্বস্তিকার

একটি গ্রুপের নেতৃত্বে রয়েছে হাজি আরিফ নামে এক ব্যক্তি৷ সে ভারতে প্রবেশের অপারেশনের যাবতীয় তথ্য সরবরাহ করবে বলে জানা গিয়েছে৷ ভারতীয় গোয়েন্দাদের রিপোর্ট অনুযায়ী, নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর আরেকটি গ্রুপের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গিয়েছে৷ মোহরা শেরিদ গ্রামের সীমানা লাগোয়া এলাকায় সন্দেহজনক কিছু ব্যক্তির উপস্থিতি রয়েছে বলে জানিয়েছে রিপোর্ট৷

এই গ্রুপে লস্কর ই তৈবা ও জইশ ই মহম্মদের মত জঙ্গি সংগঠনের সদস্য থাকতে পারে বলে খবর৷ ভারতীয় গোয়েন্দা সূত্রে খবর পাকিস্তান সেনাবাহিনীর স্পেশাল সার্ভিস গ্রুপের কিছু সদস্য এই জঙ্গি দলটিকে নির্দেশিকা দেবে৷ গোপন সূত্রে খবর, জইশ পুলওয়ামার ধাঁচে আরও একটি হামলা চালানোর পরিকল্পনা করছে৷ আগামী ৩-৪ দিনের মধ্যে এই হামলা চালানো হবে বলে আশংকা করা হচ্ছে৷

আরও পড়ুন :বালাকোটে রয়টার্সের সাংবাদিকদের ঢুকতেই দিচ্ছে না পাকিস্তান

রিপোর্টে বলা হয়েছে, আগামী ৩-৪ দিনের মধ্যে দক্ষিণ কাশ্মীরে ফের ভয়াবহ হামলা করতে পারে জইশ-ই-মহম্মদ৷ বৃহস্পতিবার থেকে এই খবর ঘোরাফেরা করছে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে৷

বলা হয়েছে, দক্ষিণ কাশ্মীরের কাজিগুন্ড এবং অনন্তনাগে আইইডি বিস্ফোরণ করতে পারে জইশ৷ এবং এই অপারেশনের জন্য একটি চুরি করা এসইউভি গাড়িও ব্যবহার করতে পারে জঙ্গিরা৷ ইতিমধ্যেই এই বিষয়ে ইন্টালিজেন্স এজেন্সি সতর্কবার্তা জারি করেছে৷ এই প্রেক্ষিতে উপত্যকায় হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে৷