স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: মাত্র ২৪ ঘণ্টা আগেই উত্তর ২৪ পরগনার রাজারহাটে অস্ত্র কারখানার হদিস পেয়েছিল এস টি এফ। সেই ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছে সাত জন কুখ্যাত দুষ্কৃতী। সেই রেশ না কাটতেই ফের অস্ত্র সহ গ্রেফতার দুই।

আরও পড়ুন- শুভেন্দুর সভা থেকে ফেরার পথে দুর্ঘটনায় মৃত তৃণমূল কর্মী

ঘটনাচক্রে এবারেও ঘটনাস্থল আবারও সেই উত্তর ২৪ পরগনা জেলা। তবে জেলার অন্য প্রান্ত। শুক্রবার খড়দহ থানা এলাকার সোদপুরের সুখচর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে দুই কুখ্যাত দুষ্কৃতীকে। ধৃত দুই ব্যক্তি হল চঞ্চল দে ওরফে বোঁচা এবং বাবাই দাস ওরফে বুড়ো।

আরও পড়ুন- ঘড়ি থমকালেই ওলটপালট হয়ে যাবে সবকিছু, হারিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা

ধৃতদের থেকে ছ্যটি বন্দুক এবং ১৯ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে। সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের আগে অস্ত্র সহ এই মোস্ট ওয়ান্টেড দুষ্কৃতীদের গ্রেফতার নিঃসন্দেহে পুলিশের বড় সাফল্য। একই সঙ্গে চিন্তার বিষয়। কারণ ভোটের আগে এত অস্ত্র দুষ্কৃতীরা কেন জড়ো করেছিল তা ভাবাচ্ছে পুলিশকে।

আরও পড়ুন- টিএমসিপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে নির্বাচনী উত্তাপ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার সকালের দিকে খড়দহ থানার পুলিশ ওই দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে। তদের জেরা করে পুলিশ এদের গোপন আস্তানার হদিস পায়। সেখান থেকেই পুলিশ বাজেয়াপ্ত করেছে ৩ টে সেভেন এম এম বন্দুক এবং আরও ৩ টে ওয়ান শটার বন্দুক এবং ১৯ রাউন্ড গুলি। এত অস্ত্র ও গুলি নির্বাচনের আগে কেন তারা জড়ো করেছিল, কি তাদের উদ্দেশ্য ছিল, তা খতিয়ে দেখছে খড়দহ থানার পুলিশ।

আরও পড়ুন- কলকাতা পুলিশের এসটিএফের হাতে বাজেয়াপ্ত ৯৫৩ কেজি মাদক

বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটর ডেপুটি পুলিশ কমিশনার আনন্দ রায় বলেন,”এই কুখ্যাত দুই দুষ্কৃতীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় তোলাবাজী, ডাকাতি, ছিনতাই অবৈধ অস্ত্রের করবার চালানোর এক গুচ্ছ অভিযোগ রয়েছে। এই দুই দুষ্কৃতীর সঙ্গে অন্য কোন বড় মাথা বা চক্র জড়িত আছে কি না, তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। এই অস্ত্র কি কাজে ব্যবহার করত ওই দুষ্কৃতীরা তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।” শনিবার দুই দুষ্কৃতীকে নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানিয়ে ব্যারাকপুর আদালতে পাঠাবে খড়দহ থানার পুলিশ।

আরও পড়ুন- বিজেপির আসন কমলেও মোদীকেই প্রধানমন্ত্রী চাইছে গুজরাত, দাবি সমীক্ষায়