স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: ‘শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে’ বাঁকুড়ার এক সিপিএম নেতাকে দল থেকে বহিস্কার ও অন্য আরেক প্রভাবশালী নেতাকে সমস্ত পদ থেকে অপসারিত করল সিপিএম৷ নেতৃত্বর দাবি, শুদ্ধিকরণের প্রশ্নে পঞ্চায়েত ভোটের মুখে বহিস্কারের এই সিদ্ধান্ত কার্যত ‘সাহসী’ পদক্ষেপ৷ এবিষয়ে সিপিএমের প্রাক্তন জেলা সম্পাদক ও বর্তমানে রাজ্য সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য অমিয় পাত্র বলেন, ‘‘দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে এই দুই নেতাকে বহিস্কার করা হয়েছে।’’ তবে কি কারণে বহিষ্কার, তাঁদের বিরুদ্ধে ঠিক কি অভিযোগ ছিল, তা অবশ্য খোলসা করতে চাননি অমিয়বাবু৷

বাঁকুড়া জেলা সিপিএম সূত্রে খবর, জেলাপরিষদের বিরোধী দলনেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে৷ অন্যদিকে সোনামুখীর প্রাক্তন জোনাল সম্পাদক তথা দলের জেলা সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য শেখর ভট্টাচার্যকে দলের সমস্ত পদ থেকে অপসারণ করা হয়েছে৷ আপাতত, তাঁর সাধারণ সদস্যপদ টুকুই রইল।

দলীয় সূত্রের খবর, সোনামুখীর সিপিএম বিধায়ককে তৃণমূলে যোগ দেওয়ানোর ব্যাপারে মধ্যস্থতা করছিলেন শেখরবাবু। এই খবর জেলা কমিটির কাছে পৌঁছালে তা রাজ্য কমিটি পর্যন্ত গড়ায়। রাজ্যের নির্দেশে রাণীবাঁধের দলনেত্রী দেবলীনা হেমব্রম ও জেলা সম্পাদক অজিত পতিকে নিয়ে দু’ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠিত হয়৷ সূত্রের খবর, তদন্তে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা মেলে৷ যদিও সুব্রতবাবুকে ঠিক কি কারণে শাস্তির কোপে পড়তে হল, তা এখনও স্পষ্ট নয়৷ এবিষয়ে মুখ খুলতে চাননি শাস্তির মুখে পড়া দুই সিপিএম নেতাও৷ বহিষ্কারের এই সিদ্ধান্তের জেরে আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে সংশ্লিষ্ট দুটি এলাকায় সিপিএমের ভোট ব্যাঙ্কের ধস আরও নামবে কি না, তা নিয়ে ইতিমধ্যেই জোর জল্পনা শুরু হয়েছে৷ যদিও এর সদুত্তর মিলবে সময়েই৷