স্টাফ রিপোর্টার, হলদিয়া: মঙ্গলবার সকালে হলদিয়ার দুর্গাচকের ঝিকুরখালিতে নদীর চর থেকে দুই অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির অগ্নিদগ্ধ দেহ উদ্ধার হল। এদিন সকালে দেহ দু’টি দেখতে পান স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁরাই পরে পুলিশে খবর দেন। প্রাথমিকভাবে পুলিশের অনুমান দু’জনই মহিলা। দেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে দুর্গাচক থানার পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন সকালে অগ্নিদগ্ধ দেহ দুটি হুগলি নদীর তীরে, হলদিয়া পুরসভার অন্তর্গত ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ঝিকুরখালিতে নদীর ধারে নির্জন জায়গায় জ্বলতে দেখেন স্থানীয় এলাকাবাসী। ঘটনার খবর চাউর হতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পরে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে।

ঘটনার আকস্মিকতায় হতভম্ব হয়ে যায় এলাকাবাসী। পরে অবশ্য স্থানীয় বাসিন্দাদের তরফে খবর যায় হলদিয়ার দুর্গাচক থানায়। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছয় হলদিয়ার পুলিশ প্রশাসন। প্রশাসনের কর্মকর্তারা গিয়ে দেখেন, দুটি দেহ জ্বলন্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। জল দিয়ে সেগুলি নেভানোর চেষ্টা করছে স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁরা দেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যায়।

এদিকে এই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, দেহটি এমন নৃশংস ভাবে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, সেটি দেখে বোঝার উপায় নেই দেহ দুটি কোনও ছেলের নাকি মেয়ের।

জানা গিয়েছে, যেখানে দেহ দুটি পড়ে ছিল তার পাশ থেকে কাদাজল আর মাটি মিলেছে। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, বাইরে থেকে দেহ দুটি এখানে এনে প্রমাণ লোপাটের জন্য মাটি খুঁড়ে তাদের কবর দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল। এদিকে এমন নৃশংস খুনের ঘটনায় শিল্পাঞ্চলের বাসিন্দারা রীতিমত আতঙ্কিত। ঘটনায় চাপা উত্তেজনা ছড়িয়েছে ওই এলাকায়। যদিও গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.