স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: মাদক কিনতে প্রায় ভারতীয় মুদ্রায় ৫৫ লাখ টাকা নিয়ে কালিয়াচক থেকে ডালখোলা এলাকার দিকে একটি লড়ি নিয়ে যাচ্ছিল দুই যুবক। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না। মাদক কেনার আগেই পুলিশের হাতে ধরা পড়ল অভিযুক্ত দুই যুবক।

ইংরেজবাজার থানার পক্ষ থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে ধৃত যুবকদের। ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ জানিয়েছে, ধৃতদের নাম সুফি আলম(৩২) এবংরহমান শেখ(২৮)। বাড়ি মুর্শিদাবাদ জেলার ফারাক্কা এলাকায়। সূত্রের খবর, লড়ির প্রকৃত মালিকের খোঁজে সন্ধান চালাছে জেলা পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার রাতে মালদহ জেলার ইংরেজবাজার থানার ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার রাতে মাদক কেনার জন্য ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক দিয়ে একটি লড়ি করে টাকা পাচার করা হচ্ছিল। সূত্রের খবর, আটক হওয়া ওই লড়িটি থেকে চুয়ান্ন লক্ষ ঊননব্বই হাজার আটশো টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। যে গুলির মধ্যে রয়েছে দুশো, পাঁচশো এবং একশো টাকার নোট। জানা গিয়েছে মাদক কেনার জন্য ধৃত ওই লড়ির চালক এবং তার সহকারি টাকা গুলি একটি ব্যাগে ভরে লড়ির সিটের নীচে রেখে দিয়েছিল।

ইংরেজবাজার থানার পুলিশ সুপার অলোক রাজুরিয়া জানিয়েছেন, সোমবার রাতে গোপন সূত্রে তাঁদের কাছে খবর আসে একটি লড়ি করে প্রচুর টাকা পাচার করা হচ্ছে মাদক দ্রব্য কেনার জন্য। সূত্রের খবরের ভিত্তিতেই সোমবার রাতেই মালদহ জেলার ইংরেজবাজার থানার ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক সংলগ্ন সুস্থানী মোড় এলাকায় হানা দিয়ে লড়িটিকে আটক করে তল্লাশি চালায় পুলিশ। আটক হওয়া লড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় ভারতীয় মুদ্রার প্রায় ৫৫ লাখ টাকা।

পুলিশ সুপার অলোক রাজুরিয়া আরও জানিয়েছেন, প্রাথমিক তদন্তে অনুমান করা হচ্ছে, টাকা গুলি কালিয়াচকের দুই ব্যবসায়ীর । মূলত ডালখোলা এলাকা থেকে মাদক কেনার জন্যই নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল ওই লড়িটিকে । মাদক কেনার ঘটনায় অভিযুক্ত ওই দুই যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, এই মাদক চক্রের সঙ্গে আর কে কে জড়িত আছে পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখছে ইংরেজবাজার থানার উচ্চপদস্থ পুলিশ আধিকারিক। পাশাপাশি ওই ব্যবসায়ীদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে মালদহ জেলা পুলিশ।