নয়াদিল্লি: দিল্লির স্টিফেন গ্রাউন্ডে অনূর্ধ্ব-২৩ টুর্নামেন্টের ট্রায়ালে অমিত ভান্ডারীকে নিগ্রহের ঘটনায় গ্রেফতার ২। সোমবার ট্রায়াল চলাকালীন জাতীয় দলের প্রাক্তন এই ক্রিকেটারের উপর চড়াও হয় এক দল যুবক৷ হকি স্টিক ও রড দিয়ে ভান্ডারীর মাথায় ও কানের পাশে আঘাত করা হয়৷ গুরুতর আহত হওয়ায় সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে সিভিল লাইনসে সন্ত প্যারামানান্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷ পরে জানা যায় অনুজ দেধা নামে এক ক্রিকেটার তাঁর দলবল নিয়ে এসে ভান্ডারীকে আক্রমণ করে।

উল্লেখ্য, সৈয়দ মুস্তাক আলি টুর্নামেন্টের জন্য বর্তমানে চূড়ান্ত প্রস্তুতিতে ব্যস্ত দিল্লি দল। সেই দলে সুযোগ না পেয়ে এদিন ট্রায়াল চলাকালীনই এসে ভান্ডারীর কাছে ট্রায়ালে সুযোগ না পাওয়ার কারণ জানতে চান এবং ভান্ডারীকে চড় মারেন ওই অনুর্ধ্ব ২৩ ক্রিকেটার। ডেপুটি পুলিশ কমিশনার নূপুর প্রসাদের মতে, এরপর জনা ১০-১৫ দুষ্কৃতী চড়াও হয়ে বেধড়ক মারধর করে জাতীয় দলের প্রাক্তন ক্রিকেটারকে।

ঘটনার পর থানায় অভিযোগের ভিত্তিতে একটি কেস নথিভুক্ত করা হয়। তারপর অভিযুক্ত অনুজ দেধা ও তাঁর ভাই নরেশকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ২০১৮ নভেম্বরে ৭৯ জনের প্রাথমিক তালিকায় নাম ছিল দেধার। কিন্তু সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফির জন্য চূড়ান্ত ট্রায়ালে নাম না আসায় সে এমন কান্ড ঘটায় বলে জানা গিয়েছে।

ডিডিসিএ প্রেসিডেন্ট রজত শর্মা জানান, ‘ঘটনা সম্পর্কে আমি দিল্লি পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে কথা বলেছি৷ দোষীর শাস্তি হবেই৷ আমরা ইতিমধ্যেই এফআইআর দায়ের করেছি৷’ হাসপাতালে ভান্ডারীর সঙ্গে দেখা করে তিনি জানান, ‘স্বাভাবিকভাবেই ঘটনায় শঙ্কিত সে। ২৪ ঘন্টার জন্য তাঁকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।’

এদিকে অমিত ভান্ডারীকে নিগ্রহের ঘটনায় সোশ্যাল মিডিয়ায় নিন্দার ঝড় প্রাক্তন থেকে বর্তমান ক্রিকেটারদের। দোষীদের যেমন কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন বীরেন্দ্র সেওয়াগ তেমনই অভিযুক্ত ক্রিকেটারকে সমস্ত ধরনের ক্রিকেট থেকে আজীবন নির্বাসনের দাবি জানিয়েছেন ঘরোয়া ক্রিকেটে একদা ভান্ডারীর সতীর্থ গৌতম গম্ভীর। ঘটনায় বিস্মিত শিখর ধাওয়ান ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত চেয়ে অভিযুক্তদের উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেন।