স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: দুবরাজপুরের মুক্তিনগরে তৃণমূল কর্মী খুনের ঘটনায় ১২ জন বিজেপি কর্মীকে গ্রেফতার করেছে খয়রাশোল থানার পুলিশ। অন্যদিকে, গন্ডগোলের ঘটনায় গ্রেফতার এক তৃণমূল কর্মী। ২১ মে পর্যন্ত জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

আরও পড়ুন: মে মাসের প্রথম সপ্তাহেই ভারতে বিদ্যুতের ব্যবহার বাড়ল ২৫ শতাংশ

ভোট পরবর্তী সন্ত্রাস অব্যাহত বীরভূমেও। দফায় দফায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে দুবরাজপুরের মুক্তিনগরে। শুক্রবার রাতে মুক্তিনগরে তৃণমূল ও বিজেপি কর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে মৃত্যু হয় এক তৃণমূল কর্মীর। আরও ৯ জন তৃণমূল কর্মী হাসপাতালে ভর্তি। তাঁদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয় এলাকায়।

আরও পড়ুন: চিকিৎসা সামগ্রী থেকে জিএসটি মকুবের দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে মুখ্যমন্ত্রীর চিঠি

তৃণমূলের অভিযোগ, শুক্রবার রাত থেকেই মুক্তিনগর গ্রামে পরিকল্পিত হামলা চালায় বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। তৃণমূল কর্মীদের বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। যদিও সেই দাবি অস্বীকার করেছে বিজেপি। পালটা তাঁদের দাবি, ভোটের ফল ঘোষণার পর থেকেই বিভিন্ন গ্রামে হামলা চালাচ্ছে তৃণমূলের বাইক বাহিনী। এই ঘটনায় কান্ত বাউড়ি নামে এক তৃণমূল কর্মীর মৃত্যু হয়। অভিযুক্তদের খয়রাশোল থানার পুলিশ রবিবার গ্রেফতার করে দুবরাজপুর আদালতে তুললে আদালত তাদের দুই জনকে পাঁচ দিনের পুলিশি হেফাজতের ও বাকি দশ জনের ২১ মে পযন্ত জেল হাজতের নির্দেশ দেন দুবরাজপুর আদালতের বিচারক। এই ঘটনায় এখনও বিজেপি নেতৃত্বের প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি৷

আরও পড়ুন: অক্টোবরেই আছড়ে পড়বে করোনার তৃতীয় ঢেউ, গাণিতিক সমীক্ষা কানপুর আইআইটির

২ মে রাজ্য বিধানসভার ভোটের ফল ঘোষণার পরই রাজ্যের বিভিন্ন জেলা থেকে অশান্তির খবর সামনে আসতে থাকে। এ নিয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট চাওয়ার পাশাপাশি বাংলায় প্রতিনিধি দল পাঠায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। শনিবার বীরভূমের নানুর, ময়ূরেশ্বর দুবরাজপুরের পাশাপাশি পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রামেও যায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের ৪ সদস্যের প্রতিনিধি দল।

আরও পড়ুন: দিল্লির হাতে অতিরিক্ত অক্সিজেন, কালোবাজারি চলছে- প্রকাশ কেন্দ্রের সমীক্ষায়

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.