কোচবিহার: স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ে আটকাতে পাত্রীর বাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন স্ত্রী৷ সঙ্গে একরত্তি ছেলে ও শাশুড়িও৷ বৃহস্পতিবার এমন ঘটনা শোরগোল ফেলে দিয়েছে কোচবিহারের অমরতলায়৷ ন’বছর আগে প্রেম করে বিয়ে করেছিলেন কোচবিহারের অমরতলা এলাকার যুবক দীপক সাহা৷ বর্তমানে তাঁদের তিন বছরের এক সন্তান রয়েছে।

আরও পড়ুন: শুক্রবারই বীরভূম জেলা পরিষদে শপথগ্রহণ

অভিযোগ, বেশ কিছুদিন হল নিজের পরিবার থেকে আলাদা থাকেন দীপক সাহা৷ সম্প্রতি তাঁর স্ত্রী জানতে পারেন স্বামীকে তাঁকে ডিভোর্স দিয়েছেন৷ এবং তার যথাযথ আইনী কাগজও দীপকের হাতে রয়েছে৷ এরপরই সেই নির্দেশ নিয়ে ফের আদালতে যান দীপক সাহার স্ত্রী৷ এরইমধ্যে খবর পান, দীপক অন্য একটি বিয়ে করছেন৷

কোচবিহার শহরের নিউটাউন এলাকায় হবু স্ত্রীর বাপের বাড়ি৷ স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ে মানতে পারছেন না ওই গৃহবধূ৷ তিনি পুলিশের কাছেও যান৷ কিন্তু সেখান থেকে তেমন সাহায্য পাননি বলে অভিযোগ৷ বাধ্য হয়ে নতুন বউয়ের বাড়ির সামনে নিজের তিন বছরের সন্তানকে নিয়ে ধর্নায় বসেন অভিযোগকারী৷

আর ছেলের বউয়ের পাশে দাঁড়ান দীপকের না৷ তিনিও তাঁর বউমার অধিকারের দাবিতে ছেলের বিরুদ্ধে ধর্নায় বসেন। ওই গৃহবধূর পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন অমরতলা এলাকার বাসিন্দারাও৷ তারাও বিয়ে বন্ধের দাবি করেছেন। যদিও অভিযুক্ত দীপক সাহার দাবি, তিনি ডিভোর্স নিয়েই বিয়ে করছেন৷ এবং তাঁর মায়ের ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, মাকে ভুল বোঝানো হয়েছে৷ ভয় দেখিয়েছেন স্ত্রী৷

আরও পড়ুন: চিকিৎসার গাফিলতিতে শিশুমৃত্যুর অভিযোগ বিষ্ণুপুর জেলা হাসপাতালে

যদিও ছেলের দাবি মানতে নারাজ দীপকের মা৷ তাঁর দাবি, আমার ছেলে বউমার প্রতি অবিচার করেছে৷ তাঁকে কিছু না জানিয়েই ডিভোর্স দিয়েছে৷ আমি বউমার পাশেই আছি৷ স্থানীয় সূত্রের খবর, এই ধর্নার জেরে আপাতত ভেস্তে গিয়েছে দীপক সাহার দ্বিতীয় বিয়ের পরিকল্পনা৷

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব