তিরুঅনন্তপুরম: ফের শবরীমালা ইস্যু৷ ফের উত্তপ্ত কেরল৷ এরই মাঝে সমাজকর্মী ত্রুপ্তি দেশাইকে নিয়ে মন্তব্য করে বিতর্ক ছড়ালেন কেরলের সিপিআই মন্ত্রী ভি এস সুনীল কুমার৷ এদিকে, শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশ করার সংকল্প নিয়ে শুক্রবার সকালে কোচি বিমানবন্দরে পা রাখেন ত্রুপ্তি৷

তবে বিমানবন্দর থেকে বের হতে দেওয়া হয়নি তাঁকে৷ বিমানবন্দরেই আটকে দেওয়া হয়৷ সেখানেই বসে পড়ে ধরণা অবস্থান শুরু করেন ওই সমাজকর্মী৷ ত্রুপ্তি দেশাইয়ের এই আচরণকেই কটাক্ষ করে তাঁকে আরএসএস কর্মী বলে মন্তব্য করে বসেন কেরলের ওই মন্ত্রী৷ তাঁর মতে ত্রুপ্তি দেশাইকে নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থ সিদ্ধির জন্য ব্যবহার করছে বিজেপি৷ ভগবান আয়াপ্পাকে নিয়ে বিজেপি ও আরএসএস রাজনীতি করছে৷

ফাইল ছবি

এদিকে, শুক্রবার ভোর সাড়ে চারটে নাগাদ সমাজকর্মী দেশাই কোচি বিমানবন্দরে পা রাখেন৷ তাঁর কর্মসূচি ছিল শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশ করা৷ তবে বলাই বাহুল্য, তাঁর সেই আশা এদিনও পূর্ণ হয়নি৷ তবে এই সফরে নিজের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে এমনই আশঙ্কা করেছিলেন ত্রুপ্তি৷ কেরলের মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখে সেই আশংকার কথা জানিয়ে ছিলেন তিনি৷ তবে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলে ত্রুপ্তির অভিযোগ৷

উল্লেখ্য, শনিবার খুলে যাচ্ছে ভগবান আয়াপ্পার মন্দির৷ মাদালা-মক্কারাভিলাকু উৎসব উপলক্ষ্যে ২ মাস খোলা থাকবে মন্দির৷ তাই তার আগে, শুক্রবার মন্দিরে প্রবেশের চেষ্টা করবেন বলে জানিয়েছিলেন এই সমাজকর্মী৷

আরও পড়ুন : বিজেপির রথের বদলে মমতার একতা যাত্রার কর্মসূচি

তবে ত্রুপ্তির এই কর্মসূচির কড়া নিন্দা করেছেন কেরলের ওই মন্ত্রী৷ তিনি বলেন ত্রুপ্তি পুনে থেকে শবরীমালার উদ্দ্যেশ্যে যাত্রা শুরু করেছিলেন৷ তাঁকে সেখানেই পুলিশ দিয়ে আটকে দেওয়া উচিত ছিল৷ কোচি অবধি আসলেন কীকরে তিনি?

তবে মন্ত্রীর এই বক্তব্যের জবাব দিয়েছেন সমাজকর্মী দেশাই৷ তিনি বলেন “কোনও রাজনৈতিক তকমা দিয়ে আমাকে লাভ নেই৷ কারণ কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আমি যুক্ত নন৷ রাজনীতিতে আমার কোনও আগ্রহ নেই৷ বিজেপি ও আরএসএস আমাদের বিরোধিতাই করছে৷ তাহলে কীকরে আমি সেই দলের সঙ্গে যুক্ত হলাম?”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।