ওয়াশিংটন: প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সাময়িকভাবে অভিবাসন ( immigration) বন্ধ করতে চলেছেন। ‌ করোনা ভাইরাস‌ অতি মহামারীর আকার ধারণ করায় আমেরিকায় ৪০,০০০ জনের বেশি লোকের মৃত্যু হয়েছে। এই‌ পরিস্থিতিতে ‌ ট্রাম্প জানিয়েছেন, তিনি সাময়িক অভিবাসন বন্ধ রাখার ব্যাপারে এক্সিকিউটিভ অর্ডারে‌ স্বাক্ষর করবেন।

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুসারে, ইতিমধ্যে আমেরিকায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৪৩,০৯৪ জনের। তাছাড়া করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৭,৫০,০০০। সোমবার রাতেই টুইট করে ট্রাম্প জানিয়েছেন, অদৃশ্য শত্রু আক্রমণের কারণে এবং মার্কিন নাগরিকদের কাজের সুরক্ষার জন্য তিনি ইউনাইটেড স্টেটে সাময়িক অভিবাসন বন্ধ রাখার জন্য এক্সিকিউটিভ অর্ডারে স্বাক্ষর করবেন। তবে এই এক্সিকিউটিভ অর্ডার এর ব্যাপারে বিস্তারিতভাবে এখনও কিছু জানা যায়নি।

তাছাড়া তিনি কখন কোথায় এই স্বাক্ষর করবেন তারও কোনও ইঙ্গিত দেননি। যদিও ট্রাম্প অভিবাসন ভিসা সাময়িক বন্ধের কথা বলেছেন, সেখানে এইচ ওয়ান বি ভিসা যেটা ভারতীয় তথ্য-প্রযুক্তি পেশাদারদের মধ্যে খুব জনপ্রিয় সেটা হল নন ইমিগ্রান্ট ভিসা। কিন্তু তিনি মার্কিন নাগরিকদের কাজের সুরক্ষার কথা উল্লেখ করায় অনেকেই ইঙ্গিত পাচ্ছেন‌ বর্তমান পরিস্থিতি তার লক্ষ্যে রয়েছে এই নন ইমিগ্রান্ট ওয়ার্ক ভিসাও। এদিকে ইতিমধ্যে মার্কিন মুলুকে বিরাট সংখ্যক কর্মী ছাঁটাইয়ের আশঙ্কায় উদ্বিগ্ন এইচ ওয়ান বি ভিসা হোল্ডাররা।

করোনা ভাইরাসের প্রভাবে‌ যেভাবে দুনিয়াজুড়ে ব্যবসা মার খাচ্ছে তার জেরে ভবিষ্যতে সেখানে থাকা নিয়ে উদ্বেগ বেড়েছে ভারতীয় পেশাদারদের। আর সেই কারণেই ট্রাম্প প্রশাসনের কাছে তারা দাবি করেছেন চাকরি না থাকলেও সে দেশে থাকার অনুমতি ৬০ দিন থেকে বাড়িয়ে ১৮০ দিন করার জন্য।

এইচ ওয়ান বি ভিসা হল নন ইমিগ্রান্ট ভিসা যার মাধ্যমে মার্কিন সংস্থা গুলি সেইসব বিদেশিদের নিয়োগ করে যাদের প্রযুক্তিগত বিশেষ দক্ষতা রয়েছে। যার জন্য বেশ কিছু মার্কিন প্রযুক্তি সংস্থা নির্ভর করে থাকে ভারত এবং চীন থেকে আসা হাজার হাজার এই ধরনের কর্মীদের উপর।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.