ইরানের হামলার পর বিবৃতি দিলেন ট্রাম্প। আমেরিকার স্থানীয় সময় সকাল ১১ টায় হোয়াইট হাউসে বিবৃতি দেন তিনি। বলেন, আমেরিকা যে কোনও পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত।

মঙ্গলবার রাতে ইরাকে মার্কিন সেনাঘাঁটি লক্ষ্য করে মিসাইল ছোঁড়ে ইরান। এরপরই বিবৃতি দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।
এদিন ইরান দাবি করেছে তাদের হামলায় ৮০ জন মার্কিন সেনার মৃত্যু হয়েছে। ২০০ জন আহত হয়েছেন। কিন্তু ট্রাম্প বলেন, কোনও মার্কিন সেনার মৃত্যু হয়নি। ন্যুনতম ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এদিন ইরানের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ইরানের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হোক। পরমাণু যুদ্ধের পথে যাতে ইরান না যায়, সেই বার্তা দেন তিনি। ইরান কোনোদিনই পরমাণু অস্ত্র ব্যবহার করতে পারবে না বলে জানিয়েছেন তিনি। উপরি নিষেধাজ্ঞা জারি হবে বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি।

সোলেমানিকে হত্যার জবাবে, ইরাকের সেনা ঘাঁটি লক্ষ্য করে এক ডজন মিসাইল ছুঁড়েছে ইরান। গত সপ্তাহেই মার্কিন এয়ারস্ট্রাইকে ইরানের মেজর জেনারেল সোলেমানির মৃত্যু হয়। এরপর একের পর এক পাল্টা জবাব দিচ্ছে ইরান। ইরাকের সেনা ঘাঁটিতে মার্কিন সেনা ছিল বলে জানা গিয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত কোনও মার্কিন সেনার হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

ট্রাম্প ট্যুইট করে বলেন, ‘ইরাকের দুটি সেনা ঘাঁটি লক্ষ্য করে মিসাইল ছোঁড়া হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতি কতটা হয়েছে, তার খোঁজ চলছে। এখনও পর্যন্ত সবই ঠিক আছে।’ ইরানকে বার্তা দিয়ে ট্রাম্প বলেন, ‘বিশ্বের মধ্যে সবথেকে শক্তিশালী ও আধুনি অস্ত্রধারূ সেনাবাহিনী আমাদের আছে। কাল সকালে বিবৃতি দেব।’ এরপরই বিবৃতি দেন তিনি।