ওয়াশিংটন: আশঙ্কা করা হচ্ছিল এবার সেটাই সিদ্ধান্ত হল । এই বছরের শেষ অবধি এইচ-১বি, এইচ-৪,এল-১ এবং জে-১ ভিসা দেওয়া হবে না বলে সিদ্ধান্ত নিল মার্কিন প্রশাসন। এমনটা ঘটছে তার ইঙ্গিত গত শনিবারেই দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সোমবার এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা ছিল। সেই মতোই দেখা গেল সোমবার হোয়াইট হাউস সাংবাদিকদের জানাল, প্রেসিডেন্ট সাময়িক ভাবে প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভিসার ক্ষেত্রে রাশ টানার ব্যাপারে। এর ফলে এই বছরের শেষ পর্যন্ত আর কোনও ওয়ার্ক ভিসা দেওয়া হবে না। যার ফলে মার্কিনীরা দেশে ৫ লক্ষ ২৫ হাজার কর্মসংস্থানের সুযোগ পাবে।

করোনা সংকট দু’ভাবে ধাক্কা দিয়েছে আমেরিকাকে। একদিকে এই মারন ভাইরাসের কারণে দেশজুড়ে মৃত্যু-মিছিল দেখা গিয়েছে অন্যদিকে আবার লকডাউন জারি করায় চরমভাবে বিপর্যস্ত অর্থনীতি। আর্থিক পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে সেখানে ৪০ লক্ষের বেশি লোক কাজ হারিয়েছেন। সামনে ভোট অন্যদিকে দেশের মানুষ চাকরির জন্য অস্থির হয়ে পড়ছে। তাই নাগরিকদের চাকরির ব্যবস্থা করতে কাজের ভিসার ব্যাপারে কড়া ব্যবস্থা নিলেন ট্রাম্প।

এখন এইচ-১ বি ভিসা নিয়ে যারা আমেরিকায় আছেন, নয়া এই নীতিতে‌ তেমন কোন প্রভাব পড়বে না বলেই মনে করা হচ্ছে। তবে যারা আবেদন করার লাইনে ছিলেন তারাই মূলত মুশকিলে পড়বেন। মার্কিন অভিবাসন দফতরের পরিসংখ্যান অনুসারে, ২০১৯ সালে ১ লক্ষ ৩৩ হাজার বিদেশীকে এইচ-১বি ভিসা দেয়া হয়েছিল। এদের একটা বড় অংশই হল ভারত এবং চিন থেকে আসা তথ্যপ্রযুক্তি কর্মী। ফলে এমন সিদ্ধান্ত ভারতীয় তথ্য-প্রযুক্তি কর্মীদের দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে দিল।

করোনা অতি মহামারীর শুরুতেই ট্রাম্প দেশে সমস্ত রকম অভিবাসন বন্ধ করার কথা বলেছিলেন। তখন অবশ্য নানা মহল এই বিষয়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল। বিশেষত মার্কিন চেম্বার অফ কমার্স এবং বিভিন্ন শিল্পগোষ্ঠী তখন প্রেসিডেন্টকে চিঠি দিয়েছিলেন এমনটা করলে মার্কিন অর্থনীতি বিপাকে পড়বে। এবার এই সিদ্ধান্ত জানার পর তাদের অনেকেরই আশঙ্কা, আমেরিকার অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোটা এবার আরও কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ